প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সূচক ইতিবাচক করতে মূল ভূমিকায় বহুজাতিক কোম্পানি

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে গতকাল সূচকের মিশ্র প্রবণতায় লেনদেন হয়েছে। কমেছে বেশিরভাগ শেয়ারের দর। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ডিএসইএক্স ও ডিএস৩০ সূচক ইতিবাচক ছিল। কমেছে ডিএসই শরিয়াহ সূচক। ডিএসইতে দর বেড়েছে ৪২ শতাংশ কোম্পানির। দরপতন হয় ৪৪ শতাংশের। এছাড়া সূচকে প্রভাব বিস্তারকারী শীর্ষ কোম্পানিগুলোর বেশিরভাগই দরপতনে ছিল। তা সত্ত্বেও সূচক ইতিবাচক করতে মূল ভূমিকায় ছিল বহুজাতিক কোম্পানিগুলো। বহুজাতিক প্রায় সব কোম্পানির দর গতকাল বেড়েছে।

বহুজাতিক কোম্পানিগুলোর মধ্যে রেকিট বেনকিজারের দর ৩১ টাকা বেড়েছে। ম্যারিকো ৪২ টাকা ৭০ পয়সা, গ্লাক্সোস্মিথক্লাইনের দর ৩৮ টাকা ৫০ পয়সা, বার্জার দুই টাকা ৪০ পয়সা, লিন্ডে বিডি ৩২ টাকা ৪০ পয়সা, রেনাটার দর ২০ টাকা ৯০ পয়সা, বিএটিবিসির দর ৪৫ টাকা ৩০ পয়সা বেড়েছে। এছাড়া বাটা শুর দর ১৯ টাকা ৭০ পয়সা বেড়েছে। যার কারণে গ্রামীণফোন, স্কয়ার ফার্মা, ইউনাইটেড পাওয়ার, আইসিবি, ইসলামী ব্যাংকের মতো বড় মূলধনি কোম্পানির দরপতনেও সূচক ইতিবাচক রয়েছে।

ডিএসইর মোট লেনদেনের প্রায় ১৯ শতাংশ ছিল প্রকৌশল খাতের দখলে। এ খাতে ৫৯ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। এসএস স্টিলের প্রায় ১৬ কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ৫০ পয়সা। ন্যাশনাল টিউবসের ১১ কোটি টাকা লেনদেন হলেও সাড়ে তিন টাকা দরপতন হয়। ন্যাশনাল পলিমারের আট কোটি ১৪ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে দুই টাকা ৩০ পয়সা। বস্ত্র খাতে লেনদেন হয় ১২ শতাংশ। এ খাতে ৬০ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। প্যারামাউন্ট টেক্সটাইলের ১০ কোটি ৮০ লাখ টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ২০ পয়সা। সাত দশমিক ৬৫ শতাংশ বেড়ে শাশা ডেনিম, সাত শতাংশ বেড়ে কাট্টলী টেক্সটাইল, সাড়ে ছয় শতাংশ বেড়ে শেফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজ দরবৃদ্ধিতে অষ্টম অবস্থানে উঠে আসে। বিমা খাতে লেনদেন হয় ১০ শতাংশ। বিক্রির প্রবণতা বেশি থাকায় এ খাতে মাত্র ৩২ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের ৯ কোটি ৩৪ লাখ টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ৭০ পয়সা। ৯ দশমিক ৮৭ শতাংশ বেড়ে  ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স দরবৃদ্ধিতে দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে আসে। ছয় দশমিক ২০ শতাংশ বেড়ে ফারইস্ট লাইফ দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১০ শতাংশ। এ খাতে ৫৩ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। প্রায় ১০ শতাংশ বেড়ে গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল দরবৃদ্ধির শীর্ষে উঠে আসে। এছাড়া খাদ্য খাতের ফু-ওয়াং ফুড, সিরামিক খাতের ফু-ওয়াং সিরামিক, তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের ইনফরমেশন সার্ভিসেস নেটওয়ার্ক দরবৃদ্ধির শীর্ষ দশে উঠে আসে। এছাড়া সেবা ও আবাসন খাতের সাইফ পাওয়ারের দর আট শতাংশ বেড়েছে।