প্রচ্ছদ প্রথম পাতা বাজার বিশ্লেষণ

সূচক ও শেয়ারদরে বড় পতন অব্যাহত

রুবাইয়াত রিক্তা: পুঁজিবাজারে সূচক ও শেয়ারদরে বড় পতন অব্যাহত রয়েছে। আগের দিন ৫০ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হলেও ওষুধ ও রসায়ন খাত বাজারের পতন ঠেকায়। কিন্তু গতকাল কোনো খাতই বাজারে ভূমিকা রাখতে পারেনি। গতকাল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ৭৫ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়। দর বেড়েছে মাত্র ১৬ শতাংশ বা ৫৯টি কোম্পানির। ছোট বড় বা মাঝারি কোনো খাতই ভালো অবস্থানে ছিল না। সব খাতেই হাতে গোনা কোম্পানির দর বেড়েছে। ওষুধ ও রসায়ন খাতে আগের দিনের তুলনায় লেনদেন কমেছে। অন্যদিকে প্রকৌশল এবং জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে আগের দিনের তুলনায় লেনদেন বেড়েছে।
গতকাল দুই শতাংশ বেড়ে প্রকৌশল খাতে লেনদেন হয় ২০ শতাংশ। খাতটি লেনদেনের শীর্ষে অবস্থান করে। এ খাতে ২৫ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। প্রায় ২০ কোটি টাকা লেনদেন হয় এ খাতের ন্যাশনাল টিউবসের। দর বেড়েছে সাত টাকা। মুন্নু জুট স্টাফলার্সের সাড়ে ১২ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর বেড়েছে ৭০ টাকা ৩০ পয়সা। কোম্পানি দুটি দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় উঠে আসে। ছয় শতাংশ কমে ওষুধ ও রসায়ন খাতে লেনদেন হয় ১৯ শতাংশ। এ খাতে মাত্র ৩১ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। প্রায় সাড়ে ২৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে ইউনাইটেড পাওয়ার। কোম্পানিটির শেয়ারদর পাঁচ টাকা ৭০ পয়সা বেড়েছে। ওয়াটা কেমিক্যালের প্রায় ১৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়, দর বেড়েছে ২৯ টাকা ৪০ পয়সা। কোম্পানিটি দর বৃদ্ধিতে চতুর্থ অবস্থানে উঠে আসে। জেএমআই সিরিঞ্জের সাড়ে ১২ কোটি টাকা লেনদেন হলেও প্রায় ১৭ টাকা দরপতন হয়। সিলকো ফার্মার প্রায় ১০ কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে ৮০ পয়সা। বীকন ফার্মার সোয়া আট কোটি টাকা লেনদেন হয়। দর কমেছে ৪০ পয়সা। প্রায় পাঁচ শতাংশ বেড়ে রেকিট বেনকিজার দর বৃদ্ধিতে সপ্তম অবস্থানে উঠে আসে। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতে লেনদেন হয় ১২ শতাংশ। এ খাতে মাত্র তিনটি কোম্পানির দর বেড়েছে। সাড়ে ২৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়ে শীর্ষে উঠে আসে ইউনাইটেড পাওয়ার। কোম্পানিটির শেয়ারদর পাঁচ টাকা ৭০ পয়সা বেড়েছে। বিমা খাতে লেনদেন হয় ১০ শতাংশ। এ খাতে মাত্র ১৯ শতাংশ কোম্পানির দর বেড়েছে। গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের সাড়ে ১০ কোটি টাকা লেনদেন হলেও দরপতন হয় এক টাকা ৯০ পয়সা। প্রিমিয়ার ইন্স্যুরেন্স ও প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের মধ্যে উঠে আসে। খাদ্য খাতের ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকো কোম্পানির সোয়া আট কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি দর বেড়েছে ২৬ টাকা। এছাড়া চারটি মিউচুয়াল ফান্ড দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশের তালিকায় অবস্থান করে। এছাড়া ভ্রমণ ও অবকাশ, টেলিযোগাযোগ, কাগজ ও মুদ্রণ, এবং পাট খাত শতভাগ নেতিবাচক ছিল।

 

সর্বশেষ..