কৃষি কৃষ্টি

সূর্যমুখী চাষাবাদে মেনে চলুন সঠিক নিয়ম

তেলজাতীয় অর্থকরী ফসল সূর্যমুখী। সঠিক চাষে লাভবান হওয়া যায়। আজকের আয়োজন এর নানা দিক নিয়ে

সূর্যমুখী শুধু ফুলই নয়, এটি তেলজাতীয় একটি ফসলও বটে। বাংলাদেশে এর উৎপাদন অন্যান্য দেশের তুলনায় কম। তবে ধীরে ধীরে এটি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।
সূর্যমুখীর গাছ লবণাক্ত জমির উপযোগী। তাই সব জায়গায় এর চাষ সম্ভব নয়। বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের মাটি লবণাক্ত। এখানে চাষের জন্য উপযুক্ত। সঠিক চাষ পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারলে সূর্যমুখী চাষে অধিক লাভবান হতে পারবেন চাষিরা। জেনে নিতে পারেন এর চাষাবাদ সম্পর্কে:
জলবায়ু: সূর্যমুখী আলো নিরপেক্ষ একটি ফসল, তাই সারা বছর চাষ করা যায়। বীজের অঙ্কুরোদগম ও চারা গজানোর পর কিছুদিন ঠাণ্ডা আবহাওয়া প্রয়োজন। দৈহিক বৃদ্ধির সময় হালকা বৃষ্টিপাত হলে ভালো। এরপর পুষ্পায়নের জন্য কিছুটা উষ্ণ আবহাওয়া দরকার। এছাড়া ভালো ফলনের জন্য বীজ পাকার সময় মেঘমুক্ত আকাশ খুবই উপযোগী।
জাত ও জমি নির্বাচন: সূর্যমুখীর দুটি জাতের মধ্যে কিরণী (ডিএস ১) জাতটি চাষের জন্য বেছে নিতে পারেন। সূর্যমুখী সাধারণত লবণাক্ত মাটিতে ভালো জন্মে। তবে সঠিক পরিচর্যায় দোআঁশ ও বেলে দোআঁশ মাটিতেও উৎপন্ন করা সম্ভব। মাঝারি নিচু জমি এ ফসল চাষের উপযুক্ত। অত্যন্ত নিচু জমি বা যেখানে পানি জমে থাকে, এমন স্থানে চাষ করা উচিত নয়। মাটিতে আর্দ্রতা বা রসের পরিমাণ বেশি হলে বীজ বোনার পর তা পচে যেতে পারে।
বপনের সময়: সব মৌসুমেই এটি চাষ করা যায় ঠিকই, তবে কয়েকটি বিষয় মেনে চলা উচিত। রবি মৌসুমে অগ্রহায়ণে অর্থাৎ নভেম্বর থেকে ডিসেম্বরে চাষ করা যায়। খরিপ ১ মৌসুমের জন্য বৈশাখে, অর্থাৎ এপ্রিল থেকে মে এবং খরিপ ২ মৌসুমের জন্য ভাদ্রে, অর্থাৎ আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বরে বীজ বপন করা হয়।
জমি তৈরি: সূর্যমুখী গভীরমূলী ফসল। তাই জমি ভালোভাবে চাষ করতে হবে। জমিতে তিন থেকে চারটি আড়াআড়ি চাষ দেওয়ার পরে মই দিয়ে মাটি ঝুরঝুরে করে নিতে হবে। চাষকৃত জমি ছোট ছোট প্লটে ভাগ করে নেওয়া যেতে পারে। এতে বীজ বপনের পর পরিচর্যা করতে সুবিধে হবে।
বপন পদ্ধতি: বীজ বপন ও শোধনের আগে চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। এতে বীজের ত্বক নরম হবে। অঙ্কুরোদগম ভালো হবে। সূর্যমুখীর বীজ দুই থেকে তিন সেন্টিমিটার গভীরে বপন করতে হয়। সারিতে বপন করলে ভালো ফলন পাওয়া যাবে। সারি থেকে সারির দূরত্ব ৫০ সেন্টিমিটার ও গাছ থেকে গাছের দূরত্ব ২৫ সেন্টিমিটার হতে হবে। প্রতিটি স্থানে তিন থেকে চারটি বীজ বপন করতে হয়। চারা গজানোর পর সুস্থ ও সবল চারা রেখে বাকিগুলো তুলে ফেলতে হবে।

পরিচর্যা ও ফসল সংগ্রহ

সূর্যমুখীর পরিচর্যায় চাষিদের সচেতন হওয়া জরুরি। বিশেষ করে বীজ থেকে চারা গজানোর পর সার দেওয়ার সময় সতর্ক থাকতে হবে।
বীজ বপনের পর যখন সূর্যমুখী পুষ্ট হওয়া শুরু করে, তখন জমিতে বিভিন্ন পাখির উপদ্রব শুরু হয়। ভোর ও সূর্যাস্তের আগে পাখির আক্রমণ বেশি হয়। এদের আক্রমণ থেকে বাঁচতে বাঁশের চোঙ বা ঘণ্টা বাজিয়ে অথবা জমির মাঝখানে কেরোসিনের টিন উঁচু করে বেঁধে দিতে হবে। এতে দড়ির সাহায্য দূর থেকে টেনে শব্দ করলে পাখি জমিতে বসতে পারে না।
সূর্যমুখী জমিতে বথুয়া, দূর্বা, থানকুনি প্রভৃতি জন্মে। চারা গজানোর পর দুই মাস পর্যন্ত জমিকে আগাছামুক্ত রাখতে হবে। আগাছা পরিষ্কার করার সময় প্রতিটি স্থান বা গোছায় একটি স্বাস্থ্যবান চারা রেখে বাকি চারা তুলে ফেলতে হবে। এছাড়া কোনো স্থান বা গোছায় চারা না গজালে বা কোনো সুস্থ চারা না থাকলে সেখানে তুলে ফেলা চারাগুলোর মধ্য থেকে সুস্থ চারা নিয়ে তা রোপণ করতে হবে। কাজটি বিকালে করা উত্তম। লাগানো চারার গোড়ায় তিন থেকে চার দিন পানি দিলে চারাটি ভালোভাবে বেড়ে উঠবে। এছাড়া ইউরিয়া, টিএসপি, এমওপি, দস্তা প্রভৃতি সার ছিটিয়ে দিতে হবে।
সেচ ও নিষ্কাশন: খরিপ মৌসুমে সূর্যমুখীর জন্য সাধারণত কোনো সেচের প্রয়োজন পড়ে না। তবে রবি মৌসুমে ভালো ফলন পাওয়ার জন্য দুই থেকে তিনবার সেচ দিতে হবে। প্রথম সেচ চারা গজানোর এক মাস পর, দ্বিতীয় সেচ দেড় মাস ও তৃতীয় সেচ আড়াই মাস পর দিতে হয়। কোনো কারণে জমিতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হলে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে। দুই সারির মাঝের মাটি তুলে গাছের গোড়ায় দিতে হয়। এতে গাছের গোড়া মজবুত হয়। ফলে ঝড়-বৃষ্টিতে সহজে গাছ হেলে পড়ে না।
ফসল সংগ্রহ ও সংরক্ষণ: পরিপক্ব হলে গাছের পাতা হলদে হয়ে আসে, পুষ্পস্তবকসহ গাছের মাথা নুয়ে পড়ে। দানাগুলো পুষ্ট, শক্ত ও কালো রং ধারণ করে। এ সময় কাস্তে দিয়ে গাছ থেকে পুষ্পস্তবকগুলো কেটে দু-এক দিন রোদে শুকাতে দিতে হবে। এরপর লাঠির সাহায্যে আঘাত করে বীজগুলো আলাদা করা হয়। কুলা দিয়ে বীজ ভালোভাবে পরিষ্কার করার পর রোদে শুকাতে দিন। অন্তত কমপক্ষে দু-তিন দিন রোদে শুকানোর পরে সংরক্ষণ করতে হবে। বীজ ছাড়ানোর পর পুষ্পস্তবকের অবশিষ্ট অংশ গোখাদ্য ও জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

রোগ ও পোকামাকড় দমন

সূর্যমুখীও নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে। অনেক পোকামাকড় এর ক্ষতি করে। এতে ফলন ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাই চাষিদের সূর্যমুখীর রোগবালাই ও এর দমন ব্যবস্থা সম্পর্কে জানা প্রয়োজন।

পাতা ঝলসানো রোগ

অলটারনারিয়া হেলিয়াস্থি নামক ছত্রাকের আক্রমণে সূর্যমুখীর এ রোগটি হয়ে থাকে। এর আক্রমণে প্রথম দিকে পাতায় ধূসর বা গাঢ় বাদামি বর্ণের অসম আকৃতির দাগ পড়ে। পরে দাগ মিশে গিয়ে বড় দাগের সৃষ্টি হয়। অবশেষে সম্পূর্ণ পাতা ঝলসে যায়।
দমনের জন্য রোগসহনশীল কিরণী জাত চাষ করতে হবে। রোগাক্রান্ত হলে সঙ্গে সঙ্গে ছত্রাকনাশক ওষুধ পানিতে মিশিয়ে ১০ দিন পরপর দুই থেকে তিনবার জমিতে দিতে হবে। ফসল কাটার পর গাছের পরিত্যক্ত অংশ নষ্ট করলে বা পুড়িয়ে ফেললে এ রোগের উৎস নষ্ট হয়ে যায়।

শেকড়পচা রোগ

সাধারণত স্কেলেরোশিয়াম রলফসি নামক ছত্রাকের কারণে এ রোগ হয়ে থাকে। আক্রান্ত গাছের গোড়া সাদা তুলার মতো হয়। তখন গোলাকার দানার মতো দেখায়। প্রথমে গাছ কিছুটা নেতিয়ে পড়ে। কয়েক দিনের মধ্যে পুরো গাছ ঢলে পড়ে ও শুকিয়ে মারা যায়।
কৃষি অধিদফতরের পরামর্শ অনুযায়ী ছত্রাকনাশক ওষুধ দিয়ে বীজ শোধনের মাধ্যমে রোগের বিস্তার রোধ করা সম্ভব। এছাড়া জমি ভেজা থাকলে এ ছত্রাক বাঁচতে পারে না। সুতরাং রোগ আক্রমণের পর জমিতে প্লাবন সেচ দিয়ে এর প্রকোপ কমানো যায়।

বিছা পোকা

পাতার নিচের সবুজ অংশ খেয়ে জালিকা সৃষ্টি করে। এছাড়া নরম কাণ্ড খেয়ে ক্ষতি করে। ফলে গাছের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়, ফলন কমে যায়। বিছা পোকা ছোট অবস্থায় দলবদ্ধভাবে থাকে। এরা দেখতে হলুদ বা কমলা রঙের। গায়ে কাঁটা থাকে। এরা সাধারণত দলবদ্ধভাবে গাছের পাতায় আক্রমণ করে। উষ্ণ আবহাওয়ায় এ পোকার আক্রমণ বেশি দেখা যায়।
দমনের জন্য পোকাসহ পাতা সংগ্রহ করে নষ্ট করে ফেলতে হবে। সেচ নালায় কেরোসিনমিশ্রিত পানি থাকলে কীড়া পানিতে পড়ে মারা যায়। আক্রমণ বেশি হলে কীটনাশক ওষুধ পানিতে মিশিয়ে ১০ দিন পরপর বিকালে জমিতে স্প্রে করতে হবে।

ছিদ্রকারী পোকা

সবুজ ও সাদামিশ্রিত ছোট কীড়া গাছের বাড়ন্ত অবস্থায় আক্রমণ করে। ফুল ফোটার সময়েও আক্রমণ করে। গাছের পাতা খেয়ে গর্তের সৃষ্টি করে। ফুল খেয়ে পুষ্পবীজের সংখ্যা কমিয়ে ফেলে।
দমনের জন্য পাতাসহ কীড়া সংগ্রহ করে ধ্বংস করতে হবে। এছাড়া কীটনাশক ওষুধ পুরো জমিতে স্প্রে করতে হবে।

জেসিড পোকা

পূর্ণবয়স্ক ও বাচ্চা উভয়ই ক্ষতি করে। চারাগাছ থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত এরা পাতার রস খায়। এতে আক্রান্ত পাতা বিবর্ণ হয়ে যায়। পাতা হলুদ হয়ে পরে শুকিয়ে যায়। দমনের জন্য আক্রান্ত জমিতে ছাই ছিটাতে হবে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নভাবে চাষাবাদ করতে হবে। এছাড়া নিমের বীজ পিষে পানিতে এক দিন ভিজিয়ে রেখে তা ছেঁকে আক্রান্ত গাছে স্প্রে করতে হবে। এতে অনেকটা উপকার পাওয়া যায়। আর অবশ্যই কৃষি অধিদফতরের পরামর্শ নিয়ে কীটনাশক ওষুধ প্রয়োগ করতে হবে।

জাত পরিচিতি
চাষ করার আগে জাতের নাম জানা প্রয়োজন। এখন পর্যন্ত সূর্যমুখীর দুটি জাত উদ্ভাবিত হয়েছে প্রথমটি কিরণী (ডিএস-১), দ্বিতীয়টি বারি সূর্যমুখী-২। এছাড়া সম্প্রতি ইভিনিং প্রিমরোজ নামে নতুন একটি জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। যদিও এ জাতটির চাষ এখনও শুরু হয়নি।

কিরণী (ডিএস-১)
১৯৯২ সালে জাতটির অনুমোদন দেওয়া হয়। বাছাই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জাতটি উদ্ভাবন করা হয়। জাতটির কাণ্ডের ব্যাস এক দশমিক পাঁচ থেকে দুই দশমিক শূন্য সেন্টিমিটার। পরিপক্ব পুষ্পমঞ্জরি বা শাখার ব্যাস ১২ থেকে ১৫ সেন্টিমিটার। প্রতি মাথায় বীজের সংখ্যা ৪০০ থেকে ৬০০। রং কালো। এক হাজার বীজের ওজন ৬৫ থেকে ৭০ গ্রাম। বীজে তেলের পরিমাণ শতকরা ৪২ থেকে ৪৪ ভাগ। জাতটি অলটারনারিয়া ব্রাইট রোগসহনশীল। জীবনকাল তিন থেকে সাড়ে তিন মাস। হেক্টরপ্রতি ফলন এক দশমিক ছয় থেকে এক দশমিক আট টন। এ জাতটি অন্য জাতের চেয়ে ছোট, তাই
ঝড়-বৃষ্টিতে সহজে হেলে পড়ে না।

বারি সূর্যমুখী-২
গাছের কাণ্ডের ব্যাস দুই দশমিক শূন্য থেকে দুই দশমিক চার সেন্টিমিটার। পরিপক্ব পুষ্পমঞ্জুরি বা শাখার ব্যাস ১৫ থেকে ১৮ সেন্টিমিটার। রং কালো। এক হাজার বীজের ওজন ৬৮ থেকে ৭২ গ্রাম। প্রতি মাথায় বীজের সংখ্যা ৪৫০ থেকে ৬৫০। তেলের পরিমাণ শতকরা ৪২ থেকে ৪৪ ভাগ। জীবনকাল তিন মাস। হেক্টরপ্রতি ফলন দুই দশমিক শূন্য থেকে দুই দশমিক তিন টন।

ইভিনিং প্রিমরোজ

বাংলাদেশের আবহাওয়ার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে ‘ইভিনিং প্রিমরোজ’ নামের নতুন জাতের সূর্যমুখী ফুলের উদ্ভাবন করেছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থীরা। এ জাতের ফুল ফুলদানিতে অনেক দিন টাটকা থাকে। ফুল শুকিয়ে যাওয়ার পরও সুবাস ছড়ায়। টিস্যু কালচারের মাধ্যমে চাষ উপযোগী করে কাট-ফ্লাওয়ার হিসেবে এ জাতটি উদ্ভাবন করা হয়েছে। যেসব ফুল অনেক দিন ব্যবহার উপযোগী থাকে ও তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায় না, সেগুলোকে কাট-ফ্লাওয়ার বলা হয়। শীতপ্রধান কয়েকটি দেশে কাট-ফ্লাওয়ার হিসেবে সূর্যমুখীর কিছু জাত চাষ করা হলেও এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে কাট-ফ্লাওয়ার জাতীয় কোনো সূর্যমুখী চাষ করা হয়নি। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা এ বিষয়ে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..