Print Date & Time : 12 April 2021 Monday 6:53 am

সেশনজটের কবলে বাকৃবি শিক্ষার্থীরা

প্রকাশ: February 19, 2021 সময়- 12:39 am

তানিউল করিম জীম, বাকৃবি: অনলাইনে তত্ত্বীয় ক্লাসগুলো সম্পন্ন হলেও ব্যবহারিক ক্লাস না হওয়ায় গ্র্যাজুয়েশন আটকে গেছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) চতুর্থ বর্ষের সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর। করোনা মহামারির কারণে ১১ মাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় সশরীরে ক্লাসে উপস্থিতও হতে পারছেন না তারা। এতে পরীক্ষা আটকে যাওয়ায় সেশনজটের কবলে পড়েছেন ওইসব শিক্ষার্থী।

জানা যায়, গত বছরের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেলে স্থবির হয়ে পড়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম। দীর্ঘ বিরতির পর ওই বছরের অক্টোবরে শিক্ষার্থীদের ক্ষোভের মুখে শুরু হয় স্নাতক পর্যায়ের অনলাইন ক্লাস। তবে অনলাইনে শুধু তত্ত্বীয় ক্লাসগুলো পরিচালিত হচ্ছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুললে শিক্ষার্থীদের সশরীরে ব্যবহারিক ক্লাস করানোর কথা জানানো হয় তখন।

তবে করোনা মহামারির কারণে ফেব্রুয়ারিতেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না খোলায় ব্যবহারিক ক্লাসে অংশগ্রহণ করতে পারছেন না শিক্ষার্থীরা। এতে পরীক্ষা আটকে গিয়ে সেশনজটের কবলে পড়েছেন তারা।

কৃষি অনুষদের শিক্ষার্থী আনোয়ার হোসেন জনি বলেন, ‘করোনার কারণে এরই মধ্যে আমরা এক বছর পিছিয়ে গেছি। অনলাইনে তত্ত্বীয় ক্লাসগুলো যথাযথভাবে শেষ হলেও ব্যবহারিক ক্লাসগুলো করা সম্ভব হয়নি। আমাদের ব্যবহারিক ক্লাসগুলো এমন যে, সশরীরে উপস্থিত থাকা ব্যতীত সম্ভব হয়ে ওঠে না। ব্যবহারিক ক্লাস শেষ না হওয়ায় আমরা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারছি না। আমরা চাই অতি দ্রুত স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবহারিক ক্লাসগুলো শেষ করে আমাদের পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হোক।’

জানা গেছে, বাকৃবিতে মাস্টার্সের এপ্রিল-সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবর-মার্চ দুই সেমিস্টার পদ্ধতিতে ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন হয়। তবে করোনা মহামারিতে চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীরা গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করতে না পারায় এপ্রিল-সেপ্টেম্বর সেমিস্টারে ভর্তি হতে পারছেন না। শিক্ষা কার্যক্রম আরও অধিক সময় বন্ধ থাকলে অক্টোবর-মার্চ সেমিস্টারে ভর্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়বে তাদের। এতে সেশনজটের পাশাপাশি মাস্টার্সে ভর্তির বিষয়ে শঙ্কায় রয়েছেন তারা।

ক্লাস চালু করার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. একেএম জাকির হোসেন বলেন, ‘কয়েকজন শিক্ষার্থী আমার সঙ্গে কথা বলেছে। আমরাও তাদের ব্যবহারিক ক্লাসগুলো চালু করার বিষয়ে আন্তরিক। ডিন কাউন্সিলের মিটিংয়ে আমরা বিষয়টি তুলব। যত দ্রুত সম্ভব আমরা তাদের ক্লাসগুলো শুরু করব।’