কোম্পানি সংবাদ

স্টাইলক্রাফটের ঋণমান ‘বিবিবি১’

নিজস্ব প্রতিবেদক: বস্ত্র খাতের কোম্পানি স্টাইলক্রাফট লিমিটেডের ঋণমান অবস্থান (ক্রেডিট রেটিং) নির্ণয় করেছে ক্রেডিট রেটিং এজেন্সি অব বাংলাদেশ লিমিটেড (সিআরএবি)। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

তথ্যমতে, কোম্পানিটি রেটিং পেয়েছে ‘বিবিবি১’। ৩০ জুন ২০১৯ পর্যন্ত নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন, ব্যাংক ঋণের অবস্থান এবং অন্যান্য প্রাসঙ্গিক তথ্যের আলোকে এ রেটিং সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ আগামীতে কোম্পানিটির প্রডাক্ট লাইন সম্প্রসারণ বা অবকাঠামোগত উন্নয়ন তথা ব্যালেন্সিং, আধুনিকায়ন, বিস্তার এবং প্রতিস্থাপনের (বিএমআরই) জন্য সাত কোটি ৬০ লাখ টাকার অনুমোদন দিয়েছে। এছাড়া কোম্পানিটি ৩০ জুন ২০১৯ সমাপ্ত  হিসাববছরের জন্য ১৫০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। ব্যবসার সম্প্রসারণের পাশাপাশি চলতি মূলধন জোগানের লক্ষ্যে সঞ্চিত আয় মূলধন হিসেবে ব্যবহার করার জন্য বোনাস লভ্যাংশ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ। আর এ বোনাস শেয়ার পুঞ্জীভূত মুনাফা থেকে দেওয়া হবে। এছাড়া কোম্পানির ক্যাপিটাল রিজার্ভ কিংবা রিভ্যালুয়েশন রিজার্ভ অথবা আন-রিয়েলাইজড গেইন অথবা পরিশোধিত মূলধন কমিয়ে অথবা এমন কোনো উৎস থেকে এ বোনাস দেওয়া হবে নাÑযার কারণে ডিভিডেন্ড পরবর্তী রিটেইনড আর্নিংস নেগেটিভ অথবা ডেবিট ব্যালেন্স হয়।

৩০ জুন ২০১৯ সমাপ্ত হিসাববছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে সাত টাকা ৭৪ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৬৬ টাকা সাত পয়সা। আর শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে তিন টাকা ৪৮ পয়সা। ঘোষিত লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের সম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য আগামী ১৫ ডিসেম্বর বেলা সাড়ে ১১টায় রাজধানীর গুলশান-১ নং এ অবস্থিত স্প্রেক্ট্রা কনভেনশন সেন্টার লিমিটেডের কিংস হলে বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য গতকাল কোম্পানিটির রেকর্ড ডেট ছিল।

এর আগে ২০১৮ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত হিসাববছরে ৪১০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা দিয়েছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৬ টাকা ১৬ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) দাঁড়িয়েছে ৩১৭ টাকা ৯৩ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে তিন কোটি ৫৮ লাখ টাকা।

কোম্পানির ৫০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন পাঁচ কোটি চার লাখ ৯০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ২৬ কোটি ৪২ লাখ ৬০ হাজার টাকা। বস্ত্র খাতের এ কোম্পানিটি ১৯৮৩ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটেগরিতে অবস্থান করছে। কোম্পানির মোট ৫০ লাখ ৪৯ হাজার শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ৪৬ দশমিক ৬২ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক তিন দশমিক ২১ শতাংশ ও বাকি ৫০ দশমিক ১৭ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে। সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাজারদরের ভিত্তিতে শেয়ারের মূল্য আয় (পিই) অনুপাত ১৯ দশমিক ৭৫ ও হালনাগাদ অনিরীক্ষিত ইপিএসের ভিত্তিতে ২২৮ দশমিক ৯১।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..