মত-বিশ্লেষণ

স্থানীয় নির্দেশিকা কঠোরভাবে অনুসরণ করতে হবে

করোনাভাইরাসজনিত রোগ (কভিড-১৯) বিশ্বজুড়ে পারিবারিক জীবন এলোমেলো করে দিয়েছে। সময়ে শিশুসন্তানের প্রতি আলাদা মনোযোগ দিতে হয়। তাদের অনেক প্রশ্নের জবাব দিতে হয়, তাদের বোঝাতে হয় প্রজ্ঞার সঙ্গে। কভিডকালে শিশুকে কীভাবে গুণগত সময় দেবেন, তা ঠিক করুন।

আপনার শিশুকে নিরাপদ রাখুন: আপনার সন্তানকে ঘরের ভেতরে ও বাইরে উভয় পরিমণ্ডলেই যথাসম্ভব সক্রিয় থাকতে সহায়তা করার সময় কভিড-১৯-এর স্থানীয় নির্দেশিকা কঠোরভাবে অনুসরণ করার জন্য পরামর্শ দেয়া হলো। কভিড-১৯-এর ক্ষেত্রে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আপনার এলাকার স্থানীয় সহায়তা দল কোনো সাহায্য করছে কি না, তা জেনে নিন।

জরুরি যোগাযোগের ফোন নম্বরগুলো এমন জায়গায় রাখুন, যেখানে সহজেই আপনি এগুলো দেখতে পারবেন। যেমন ফ্রিজের দরজায় লাগিয়ে রাখুন।

সম্ভব হলে সাহায্য চান: আপনার কাজের চাপ পরিবারের অন্য বড় সদস্যদের সঙ্গে ভাগ করে নিন। আপনি একা নন! আপনার পরিস্থিতি বোঝে, এমন লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন। আপনার চ্যালেঞ্জ ও সাফল্যগুলো তাদের সঙ্গে ভাগাভাগি করুন। এ সময়ে মানসিক চাপ অনুভব করা, হতাশাগ্রস্ত হওয়া এবং ভয় পাওয়া স্বাভাবিক। নিজের প্রতি সদয় হোন এবং যখন আপনার প্রয়োজন হবে, একটি বিরতি নিন!

সমর্থক, সহানুভূতিশীল ও স্নেহময় হোন: আপনার সন্তান সাধারণত যে ধরনের সমর্থন পায়, তা তারা নাও পেতে পারে এবং এটি তাদের মধ্যে বাড়তি চাপ, উদ্বেগ ও হতাশা তৈরি করতে পারে। আপনার সন্তান যাতে নিজেকে গ্রহণযোগ্য ও পছন্দনীয় হিসেবে ভাবে সেজন্য তার সহায়তায় শারীরিক ও মৌখিক সমর্থন দিন। ইতিবাচক শারীরিক ভাষা, অঙ্গভঙ্গি ও শব্দচয়ন বড় পার্থক্য তৈরি করে!

আপনার সন্তানের সঙ্গে যোগাযোগ বা সংযোগ স্থাপন: আপনার সন্তানের সঙ্গে যোগাযোগ বা আলাপচারিতার সময় তার স্তরে নেমে আসুন।

আপনার সন্তানের চোখে চোখ রাখুন এবং তার সঙ্গে ইতিবাচক আচরণ বজায় রাখুন। আপনার শিশুকে কথোপকথনের সুযোগ দেয়ার জন্য সময় নিন। পর্যবেক্ষণ করুন, শুনুন এবং নিশ্চিত হোনÑআপনি আপনার সন্তানকে বুঝতে পেরেছেন।

ইউনিসেফের তথ্য অবলম্বনে

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..