সুশিক্ষা

স্থায়ী ক্যাম্পাস ইডিইউ’র শিক্ষার মান বাড়িয়েছে

বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান ড. কাজী শহীদুল্লাহর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির (ইডিইউ) প্রতিনিধিদল। ১ সেপ্টেম্বর উপাচার্য অধ্যাপক মু. সিকান্দার খানের নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল ইউজিসি চেয়ারম্যানকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।
সাক্ষাৎকালে উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়টির সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে ইউজিসি চেয়ারম্যানকে অবহিত করেন। তিনি বলেন, বাংলাদেশে কনিষ্ঠতম ও প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে প্রতিষ্ঠার মাত্র আট বছরে স্থায়ী ক্যাম্পাসে কার্যক্রম শুরু করেছে ইডিইউ। এরই মধ্যে প্রথম সমাবর্তন সম্পন্ন করেছে। সমাবর্তনে তিন ক্যাটেগরিতে গোল্ড মেডেলসহ নানা ধরনের উপহার দেওয়া হয়।
বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষায় গুণগত পরিবর্তন আনতে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি গবেষণায় গুরুত্বারোপ করেছে। অন্তত ২০ শিক্ষক বর্তমানে পিএইচডি গবেষণায় নিযুক্ত রয়েছেন। উন্নত বিশ্বের অনেক খ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম জনপ্রিয় ও সমাদৃত মাস্টার্স প্রোগ্রাম পাবলিক পলিসি অ্যান্ড লিডারশিপ বাংলাদেশে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটিই প্রথম চালু করেছে। এ প্রোগ্রামে শিক্ষার্থীদেরও গবেষণায় যুক্ত করা হয়েছে। আন্ডারগ্র্যাজুয়েট পর্যায়ের কারিকুলামেও ক্লাস কার্যক্রমের বাইরে প্রজেক্ট ও অ্যাসাইনমেন্টে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এছাড়া প্লেজারিজম বা কপি-পেস্ট বন্ধ করে মৌলিক ও বিশ্লেষণী রচনায় পারদর্শী করে তুলতে ইডিইউর সর্বস্তরের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তাদের জন্য যুক্ত করা হয়েছে ‘টার্নইটইন’ সফটওয়্যারে।
উচ্চশিক্ষার উন্নয়নে ইডিইউ গৃহীত কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করেন ইউজিসি চেয়্যারম্যান। ভবিষ্যতে সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। শিক্ষার মানোন্নয়নে বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থায়ী ক্যাম্পাস খুবই জরুরি। স্বল্পতম সময়ে ইডিইউর এ অর্জন তাদের গুণগত মান বৃদ্ধি করেছে। যে আশাবাদ নিয়ে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয়, তা পরবর্তী সময়ে অনেকে ধরে রাখতে পারেনি। কিন্তু ইস্ট ডেল্টা এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম, যারা প্রকৃতই মানসম্পন্ন উচ্চশিক্ষা দানের লক্ষ্যে কাজ করছে।
প্রতিনিধিদলে ছিলেন ইডিইউর প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান, মহাপরিচালক সৈয়দ শফিকউদ্দীন আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সামস উদ-দোহা, রেজিস্ট্রার সজল কান্তি বড়–য়া, প্ল্যনিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ডিরেক্টর শাফায়েত কবির চৌধুরী ও স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সহযোগী ডিন ড. মো. নাজিম উদ্দিন প্রমুখ।

সর্বশেষ..