করপোরেট টক

‘স্বপ্নপূরণের পথেই এগোচ্ছে এনভয় টেক্সটাইলস’

প্রকৌশলী কুতুবউদ্দিন আহমেদ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) পড়ালেখা সম্পন্ন করে প্রথম জীবনে কিছুদিন একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে চাকরি করেন। এরপর নতুন কিছু করার প্রত্যয় নিয়ে গার্মেন্ট ব্যবসায় নাম লেখান। সময়ের পরিক্রমায় তার হাত ধরে গড়ে উঠেছে আজকের শীর্ষস্থানীয় ও ব্যবসাসফল এনভয় গ্রুপ। তিনি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের প্রতিষ্ঠান এনভয় টেক্সটাইলসের চেয়ারম্যান। একান্ত সাক্ষাৎকারে এনভয় টেক্সটাইলসের সফলতার গল্প শুনিয়েছেন তিনি

এনভয় টেক্সটাইলসের শুরুর গল্পটা শুনতে চাই…

প্রকৌশলী কুতুবউদ্দিন আহমেদ: গার্মেন্ট ব্যবসার পাশাপাশি ২০০৫ সালে টেক্সটাইল মিল প্রতিষ্ঠার বিষয়ে আলোচনা হয়। আমরা একটি অত্যাধুনিক মানের টেক্সটাইল মিল নির্মাণের জন্য কাজ শুরু করি। এর মূল লক্ষ্য ছিল, বাংলাদেশে বিশ্বমানের টেক্সটাইল কারখানা প্রতিষ্ঠা করা, যেখানে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার থাকবে, উৎপাদিত পণ্যের মান গ্রাহকের সন্তুষ্টি অর্জনে সক্ষম হবে এবং প্রতিষ্ঠানটি শ্রমিক ও পরিবেশবান্ধব হবে। পরবর্তীকালে পোশাকশিল্পে ‘শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠান’ হিসেবে সবার কাছে যেন অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকে, সেই লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠা করা হয় এনভয় টেক্সটাইলস। প্রায় তিন বছর পর ২০০৮ সালে এনভয় টেক্সটাইলস বাণিজ্যিকভাবে পথচলা শুরু করে।

যে লক্ষ্য নিয়ে পথচলা শুরু, এক দশকে তার কতটুকু পূরণ হয়েছে?

কুতুবউদ্দিন আহমেদ: এক দশক খুব বেশি সময় নয়। বিশেষ করে যখন এ সময়ের মধ্যেই তাজরীন ফ্যাশন ও রানা প্লাজার মতো দুর্ঘটনা ঘটেছে। তার পরও সব প্রতিকূলতা ছাপিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। সময়ের সঙ্গে এনভয় টেক্সটাইলসও এগিয়ে যাচ্ছে। স্বপ্নপূরণের অংশ হিসেবে আমরা একটি অত্যাধুনিক কারখানা গড়তে পেরেছি। বিশ্বের প্রথম প্রতিষ্ঠান হিসেবে এরই মধ্যে ইউনাইটেড স্টেটস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিলের (ইউএসজিবিসি) ‘লিড প্লাটিনাম’ স্বীকৃতি পেয়েছে আমাদের প্রতিষ্ঠানটি। ব্যবসায়িকভাবেও ভালো করছে। সেইসঙ্গে রফতানি আয়ে ভূমিকা রাখছে। পরিবেশবান্ধব প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা ও দেশের অর্থনীতিতে বিশেষ অবদানের জন্য দেশ-বিদেশের সম্মান ও পুরস্কার পাচ্ছি। এসব দিক বিবেচনা করলে এনভয় টেক্সটাইলস স্বপ্নপূরণের জন্য সঠিক পথেই রয়েছে।

এনভয় টেক্সটাইলসের এগিয়ে চলার মূল শক্তি কী?

কুতুবউদ্দিন আহমেদ: উৎপাদিত পণ্যের মান, ক্রেতাদের আস্থা, বাজার নিয়ে গবেষণা ও অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার এনভয় টেক্সটাইলসকে এগিয়ে নিচ্ছে। কারখানার কর্মপরিবেশ ও শ্রমিকের সন্তুষ্টিও সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করছে। আমি মনে করি, পণ্যের মান ধরে রাখা ও ব্যবসায়ী হিসেবে পণ্যের ক্রেতা-শ্রমিক-সরবরাহকারীদের দেওয়া প্রতিশ্রুতি রক্ষা করা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। এ দিকগুলো ঠিক থাকলে ব্যবসায় সাফল্য আসবে। সততা, নৈতিকতা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির কারণে এনভয় টেক্সটাইলস বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ডেনিম পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের তালিকায় নাম লিখিয়েছে। দেশের শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোও এখন অনেক ক্ষেত্রে এনভয়কে অনুসরণ করছে। আমরা পথ দেখাতে চাই, যে পথ ধরে দেশের পোশাকশিল্পে উল্লেখ্যযোগ্য গুণগত পরিবর্তন আসবে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..