প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে সু চি রোহিঙ্গারা ফিরতে চায় না

?? ??? ????? ???? ???? ??????????????????

নিজস্ব প্রতিবেদক: পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফেরত যেতে চায় না। রোহিঙ্গারা যাতে মিয়ানমারে ফেরত যায় সেজন্য তাদের বোঝাতে বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি। মিয়ানমার সফর শেষে দেশে ফিরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এ কথা জানিয়েছেন।

গতকাল সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এর আগে রাখাইন সংকটের প্রেক্ষিতে সৃষ্ট রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যা সমাধানে আলোচনা করতে গত সোমবার মিয়ানমার যান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর বুধবার সু চি’র সঙ্গে আলোচনা করেন তিনি।

মিয়ানমারের নেত্রীর সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে আসাদুজ্জামান কামাল বলেন, অং সান সু চি আমাকে বলেন, ‘আপনারা তাদের (রোহিঙ্গা) ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য উৎসাহিত করুন। তারা তো এখন আসতে চায় না।’

এ বিষয়ে রোহিঙ্গাদের ভীতির কথা সু চিকে বলে এসেছেন জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমি বলেছি, তারা কেন আসতে চায় না? সেটা আপনি নিশ্চয়ই জানেন। তাদের আসার পরিবেশ নেই। তাই তারা আসতে চায় না।

উল্লেখ্য, রোহিঙ্গাদের নিজেদের নাগরিক হিসেবে মেনে নিতে নারাজ মিয়ানমার সরকার। তারা এই মুসলিম জনগোষ্ঠীকে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া ‘অবৈধ অভিবাসী’ বলে প্রচার করে। তবে রোহিঙ্গারা যে মিয়ানমারের নাগরিক, তার ঐতিহাসিক প্রমাণ তুলে ধরে আসছে বাংলাদেশ। জাতিসংঘে বক্তৃতায়ও তা তুলেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রোহিঙ্গাদের ফেরত নিয়ে রাখাইনে সুরক্ষার সঙ্গে বসবাসের নিশ্চয়তা দিতে মিয়ানমারের প্রতি আহবান জানিয়ে আসছে বাংলাদেশ। রোহিঙ্গা সংকট অবসানে জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বাধীন কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের কথা সু চিকে বলেছেন আসাদুজ্জামান কামাল, যেখানে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্বের স্বীকৃতি দিতে বলা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমি ?সু চিকে বলেছি, কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী কাজ করুন। আপনার দেশে শান্তি এলে আমরাও বাঁচি। তাকে বলেছি, আমাদের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে যে জায়গায় নিয়ে গেছেন, আপনিও (সুচি) মিয়ানমারকে সে জায়গায় নিতে পারবেন। বাংলাদেশের মানুষ সেটা বিশ্বাস করে।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারে জাতিগত নিপীড়নের শিকার হয়ে কয়েক দশক ধরে চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রিত জীবন কাটাচ্ছে। তাদের ফেরত নিতে আহবান জানিয়ে এলেও মিয়ানমারের সাড়া মিলছিল না। গত ২৫ আগস্ট রাখাইনে সেনা অভিযান শুরুর পর নতুন করে রোহিঙ্গা ঢল নামে বাংলাদেশ সীমান্তে। দুই মাসে এ পর্যন্ত ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।