দিনের খবর প্রচ্ছদ শেষ পাতা

স্বরূপে ফিরছে মৌলভিত্তির খাত

ডিএসইর সাপ্তাহিক চিত্র

শেখ আবু তালেব: মূলধারার বিনিয়োগকারীরা ফিরতে শুরু করেছেন মৌলভিত্তির শেয়ারে। এতে তাল মিলিয়ে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরাও সক্রিয় হয়ে উঠছেন। ফলে গত সপ্তাহ শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সবগুলো সূচক ঘুরে দাঁড়িয়েছে। প্রায় সব খাতের শেয়ারদর বৃদ্ধি পেতে দেখা গেছে এ সময়। মুনাফাও দেখতে পেয়েছেন বিনিয়োগকারীরা।

আলোচিত সপ্তাহে মাত্র তিনটি ছাড়া সব খাতেই মুনাফা দেখতে পেয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সাপ্তাহিক লেনদেন চিত্র বিশ্লেষণে পাওয়া গেছে এমন তথ্য। বাজারসংশ্লিষ্ট ও বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মৌলভিত্তির শেয়ারের প্রতি মূলধারার বিনিয়োগকারীদের বরারবরই আগ্রহ বেশি থাকে। কিন্তু দুর্বল শেয়ার বেশি লেনদেন হলে বিনিয়োগকারীরা ক্রয় কমিয়ে দেন। এখন সূচকগুলো ভালো অবস্থানে রয়েছে। পূর্বে যারা শেয়ার ছেড়ে দিয়েছিলেন, এখন তারা ক্রয় শুরু করেছেন।

বিশেষ করে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা শেয়ার ক্রয় শুরু করায় লেনদেন ও দর বৃদ্ধি পেয়েছে। অবশ্য বিমা খাতের প্রতি এখনও বিনিয়োগাকারীদের দুর্বলতা দেখা গেছে। বিরতি দিয়েই এ খাতে বিনিয়োগ বাড়িয়ে চলেছেন অনেক বিনিয়োগকারী।

গত সপ্তাহেও ডিএসইতে জীবন বিমা খাতে তিন দশমিক ১৫ শতাংশ ও সাধারণ বিমায় এক দশমিক ৭১ শতাংশ মুনাফা দেখতে পেরেছেন বিনিয়োগকারীরা। এ সময়ে সর্বোচ্চ মুনাফা দেখা গেছে প্রকৌশল খাতে। গত সপ্তাহে বিনিয়োগকারীরা এ খাতে আট দশমিক ৫১ শতাংশ মুনাফা দেখতে পান।

একইসঙ্গে ব্যাংক খাতে দুই দশমিক ৯ শতাংশ, সিমেন্ট খাতে পাঁচ দশমিক ৭৫ শতাংশ, খাদ্যে পাঁচ শতাংশ, আইটি খাতে সাত দশমিক শূন্য চার শতাংশ ও বস্ত্র খাতে তিন দশমিক ২১ শতাংশ মুনাফা দেখতে পান বিনিয়োগকারীরা।

অপরদিকে এ সময়ে লোকসান দেখা গেছে সর্বোচ্চ পাঁচ দশমিক ১৩ শতাংশ মিউচুয়াল ফান্ড খাতে। এছাড়াও জ্বালানি খাতে শূন্য দশমিক ৩২ শতাংশ ও বস্ত্র খাতে দুই দশমিক ৪২ শতাংশ।

ডিএসইতে গত সপ্তাহে মোট ৩৬৫টি কোম্পানি ও ফান্ড লেনেদেনে অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে শেয়ার ও ইউনিট  দর বৃদ্ধি পায় ২০৬টির, পূর্বে সপ্তাহে যা ছিল ১৪৪টি। কমে ৮৮টির, পূর্বের সপ্তাহে যেখানে ছিল ১৪০টির, দর অপরিবর্তিত থাকে ৬৮টির ও লেনদেন হয়নি তিনটির।

শেয়ার দর বৃদ্ধি পেলেও লেনদেন কমেছে পূর্বের সপ্তাহের চেয়ে। গত সপ্তাহে লেনদেন কমেছে শূন্য দশমিক ২৮ শতাংশ। আর পূর্বের সপ্তাহে কমেছিল আগের চেয়ে ১৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

তথ্য অনুযায়ী, ডিএসইতে গত সপ্তাহে সর্বোচ্চ ৩১ দশমিক এক শতাংশ অবদান রেখেছে সাধারণ বিমা খাত। আগের সপ্তাহেও সাধারণ বিমা খাত সর্বোচ্চ অবদান রাখে লেনদেনে। এছাড়া মিউচুয়াল ফান্ড আট দশমিক ছয় শতাংশ, ব্যাংক সাত দশমিক চার শতাংশ, এনবিএফআই দুই দশমিক ছয় শতাংশ, জীবন বিমা দুই দশমিক পাঁচ শতাংশ, ওষুধ খাত ৯ দশমিক ৯ শতাংশ, জ্বালানি চার দশমিক চার শতাংশ, প্রকৌশল খাত সাত দশমিক দুই শতাংশ ও বস্ত্র খাত চার দশমিক পাঁচ শতাংশ অবদান রাখে মোট লেনদেনে।

একক কোম্পানি হিসেবে শেয়ার দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশটিতে স্থান পায় ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ার লিমিটেড, আমরা নেটওয়ার্কস, দ্যা পেনিনসুলা চিটাগাঙ, মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজ, প্রগতি ইন্স্যুরেন্স, রংপুর ডেইরি অ্যান্ড ফুড প্রডাক্টস, হামিদ ফেব্রিকস, ন্যাশনাল ফিড মিল, নাভানা সিএনজি ও কাসেম ড্রাইসেল।

অপরদিকে একক কোম্পানি হিসেবে শেয়ার দরে লোকসানের শীর্ষে অবস্থান পায় ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন, আইএফআইসি ব্যাংক ফার্স্ট মিউচুয়াল ফান্ড, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..