মত-বিশ্লেষণ

স্মরণীয়-বরণীয়

প্রখ্যাত নাট্যকার, অভিনেতা, গ্রামোফোন কোম্পানির সুরকার, বাংলা ছায়াছবির জনপ্রিয় চিত্রনাট্যকার তুলসী লাহিড়ীর আজ ৬২তম মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ১৮৯৭ সালের ৭ এপ্রিল গাইবান্ধার (বৃহত্তর রংপুর) নলডাঙ্গার জমিদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। নাটক রচনা ও অভিনয় দিয়ে নাট্য আন্দোলনের এক নতুন দিগন্ত উম্মোচিত করেছিলেন তুলসী লাহিড়ী। বিএ ও বিএল পাস করে তিনি প্রথমে রংপুর শহরে এবং পরে কলকাতার আলিপুর কোর্টে ওকালতির মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। এ সময়ে তার রচিত দুটি গান জমিরুদ্দিন খাঁ রেকর্ড করলে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে তিনি পরিচিত হয়ে ওঠেন। এর ফলে হিজ মাস্টার্স ভয়েস ও মেগাফোন গ্রামোফোন কোম্পানিতে তিনি সংগীত পরিচালকের পদ লাভ করেন। শুরু করেন অজস্র গান রচনা আর সুর সংযোজন। পঞ্চাশের মন্বন্তরের পটভূমিকা আইন ব্যবসা ত্যাগ করে পুরোপুরিভাবে চলচ্চিত্র ও নাট্যাভিনয়ে যোগ দেন। তিনি যখন চিত্রজগতে প্রবেশ করেন, তখন ছিল চলচ্চিত্রের নির্বাক যুগ। তিনি ৫০টিরও বেশি ছবিতে অভিনয় করেন। পঞ্চাশের মন্বন্তরের পটভূমিকায় গ্রামবাংলার দরিদ্র মানুষের অভাব-অনটন, দ্বন্দ্ব সংঘাত ও তাদের ওপর ধর্মীয় ও সামাজিক নিপীড়নের আলেখ্য অবলম্বনে দুঃখীর ইমান (১৯৪৭) ও ছেঁড়া তার (১৯৫০) নাটক রচনা করে তিনি ব্যাপক সুনাম অর্জন করেন। ধনতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থার অসাড়তা প্রমাণ করার উদ্দেশ্য নিয়েই তিনি নাটক রচনা করেন। তার নাটকের মধ্যে মায়ের দাবি, পথিক, লক্ষ্মীপ্রিয়ার সংসার, মণিকাঞ্চন, মায়া-কাজল, চোরাবালি, সর্বহারা ইত্যাদি। উত্তর বাংলার কৃষক সমাজের বাস্তব জীবনচিত্র এসব নাটকের উপজীব্য। গানের জগতে তার ঘনিষ্ঠতা ছিল কাজী নজরুল ইসলামের সঙ্গে। তার লেখা বহু গান এখন নজরুলগীতি বলে প্রচলিত আছে। সহস্রাধিক জনপ্রিয় বাংলা গানের এই গীতকারের কোনো গীতসংকলন নেই। তিনি একটি অর্কেস্ট্রা দলও গঠন করেছিলেন। তিনি ১৯৫৯ সালের ২২ জুন মৃত্যুবরণ করেন। কাজী সালমা সুলতানা

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..