প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

স্মরণীয়-বরণীয়

চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র ও রাজনীতিবিদ এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর আজ চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী। তিনি ১৯৯৩ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত কয়েক দফায় চট্টগ্রামের নগর মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন। এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী ১৯৪৪ সালের ১ ডিসেম্বর চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার গহিরা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬২ সালে এসএসসি, ১৯৬৫ সালে এইচএসসি এবং ১৯৬৭ সালে ডিগ্রি পাস করেন। পরে আইন কলেজে ভর্তি হন। ছাত্র আন্দোলনে জড়িয়ে পড়ায় তিনি লেখাপড়া শেষ করতে পারেননি।

মহিউদ্দিন চৌধুরী কলেজের ছাত্র থাকাবস্থায় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন। মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে গিয়ে আইএস আইয়ের চট্টগ্রাম নেভাল একাডেমি সদর দপ্তরের কাছে গ্রেপ্তার হয়ে অমানুষিক নির্যাতনের শিকার হন দীর্ঘ চার মাস। সে সময় অনেকে ভাবেন তিনি মারা গেছেন। এরই মাঝে একদিন মানসিক রোগীর অভিনয় করে চট্টগ্রাম কারাগার থেকে পালিয়ে পাড়ি জমান ভারতে। সেখানে উত্তর প্রদেশের তান্ডুয়া সামরিক ক্যাম্পে প্রশিক্ষণরত মুক্তিযোদ্ধাদের একটি স্কোয়াডের কমান্ডার নিযুক্ত হন। স্বাধীনতার পর তিনি যুবলীগ ও পরে শ্রমিক রাজনীতিতে যুক্ত হন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হলে তিনি মোশতাক সরকারের বিরুদ্ধে ‘মুজিব বাহিনী’ গঠন করেন। সে সময় ‘চট্টগ্রাম ষড়যন্ত্র মামলা’র আসামি করা হলে তিনি কলকাতায় চলে যান। ১৯৭৮ সালে তিনি দেশে ফেরেন। পরবর্তী সামরিক শাসনের সময় মহিউদ্দিনকে বেশ কয়েকবার কারাবরণ করতে হয়েছিল। তিনি স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, চট্টগ্রাম বন্দর রক্ষা আন্দোলন, অসহযোগ আন্দোলনসহ চট্টগ্রামের মাটি ও মানুষের স্বার্থরক্ষার আন্দোলন করেছেন। এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী ১৯৯৪ সালে প্রথমবারের মতো চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন। এরপর থেকে তিনবার প্রায় ১৭ বছর তিনি মেয়র ছিলেন। তিনি অনেকগুলো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান  স্থাপন করেছেন। এছাড়া জনগণের কাছে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে ব্যাপক কাজ করার পাশাপাশি তিনি শ্রমিক আন্দোলনেও সক্রিয় ভূমিকা রেখেছেন। ২০১৭ সালের এই দিনে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

কাজী সালমা সুলতানা