মত-বিশ্লেষণ

স্মরণীয়-বরণীয়

প্রখ্যাত চিত্রশিল্পী কাইয়ুম চৌধুরীর আজ ৮৯তম জন্মবার্ষিকী। ছয় দশকের বেশি সময় তিনি শিল্পচর্চার মাধ্যমে দেশের চারুকলার জগৎ সমৃদ্ধ করেছেন। ১৯৮৬ সালে তিনি একুশে পদক লাভ করেন। এছাড়াও তিনি ২০১০ সালে সুফিয়া কামাল পদক ও ২০১৪ সালে শহীদ আলতাফ মাহমুদ পদকে ভূষিত হন। কাইয়ুম চৌধুরী ১৯৩২ সালের এই দিনে (৯ মার্চ) ফেনী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৪৯ সালে তিনি ম্যাট্রিক পাস করেই সে বছরই আর্ট ইনস্টিটিউটে (বর্তমান চারুকলা অনুষদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়) ভর্তি হন। ১৯৫৪ সালে তিনি সেখান থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন। শিক্ষা জীবন শেষ করেই তিনি নিমগ্ন হন শিল্পচর্চায়। ১৯৫৭ সালে তিনি আর্ট কলেজে শিক্ষকতায় যোগদান করেন। দেশের এ শীর্ষ শিল্পপীঠে ৩৭ বছর শিক্ষকতার পর ১৯৯৭ সালে তিনি অবসরে যান। ১৯৫৯ এবং ১৯৬১ সালে রেলওয়ের টাইমটেবিলের প্রচ্ছদ এঁকে তিনি সেরা পুরস্কার লাভ করেন । ১৯৬১ সালে তিনি অবজার্ভার পত্রিকায় চিফ আর্টিস্ট হিসেবে যোগদান করেন। বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন থেকে ষাটের দশক ও তার পরবর্তী দেশের প্রতিটি আন্দোলন-সংগ্রামে তার চিত্রকর্ম প্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করেছে। তিনি সন্ধানী প্রকাশনী ও মাওলা ব্রাদার্স প্রকাশনা সংস্থার সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন। কাইয়ুম চৌধুরী তেল রঙ, জল রঙ, কালি-কলম, মোমরং, রেশমছাপ প্রভৃতি নানা মাধ্যমে কাজ করেছেন। বর্ণিল পটভূমিতে মোটাদাগের নকশা তার প্রধানতম অঙ্কনশৈলী। তিনি লাল, নীল, সবুজ এই তিনটি রং প্রচুর পরিমাণে ব্যবহার করেন। তার চিত্রাবলিতে এদেশের লোকশিল্প সুলভ পুতুল, পাখা, হাঁড়ি, শীতলপাটি, কাঁথা প্রভৃতির ব্যবহার লক্ষণীয়। বাংলার আবহমান নিসর্গ প্রকৃতি, নদী-বৃক্ষ-মানুষ ক্যানভাসের পর ক্যানভাসে তিনি তুলিতে তুলে ধরেন। পাঁচটি একক চিত্র প্রদর্শনী এবং দেশ-বিদেশে বহু দলবদ্ধ প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করেন তিনি। তার নিরন্তর নিষ্ঠা আর সাধনায় অনুপ্রাণিত করেছেন বহু শিক্ষার্থী ও শিল্পীকে। ২০১৪ সালের ৩০ নভেম্বর বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের ক্ল্যাসিকাল মিউজিক ফেস্টিভালের চতুর্থ দিনে বক্তব্য দেয়ার সময় আকস্মিকভাবে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

কাজী সালমা সুলতানা

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..