করপোরেট কর্নার

হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের পাশে দাঁড়াল গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স

সম্প্রতি গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড সূচকভিত্তিক শস্য বিমার আওতায় হাওর কৃষকের মাঝে এক লাখ ৫০ হাজার টাকা বিমা দাবি প্রদানের ঘোষণা দিয়েছে।

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের হাওরাঞ্চলের ৩১৬ জন বোরো ধান চাষি বিগত ২৮ এপ্রিল থেকে ২২ মে গ্রিন ডেল্টা জারিকৃত সূচকভিত্তিক শস্য বিমা সুরক্ষার অধীনে ছিলেন। এরই মধ্যে গত ২০ মে বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানে সুপার সাইক্লোনিক আম্পান। এ সাইক্লোনের প্রভাবে, বিমার অন্তর্বর্তী সময়ের শেষ তিন দিনে ভারি বৃষ্টি হওয়ায় শস্যের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হন হাওর এলাকার কৃষক, যার ফলে তারা এ বিমা দাবি পাচ্ছেন।

সারা দেশে করোনা মহামারির প্রকোপ জনজীবন দুর্বিষহ করে তুলেছে, যার ভয়াল থাবা থেকে রেহাই পায়নি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলোও। তা সত্ত্বেও গ্রিন ডেল্টা ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বিমা দাবি পরিশোধের সিদ্ধান্তে এগিয়ে এসেছে।

এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে প্রতিষ্ঠানটি জানায়, গ্রিন ডেল্টা সব সময় বিশ্বাস করে যে, দারিদ্র্যপীড়িত কৃষকদের জন্য সূচকভিত্তিক শস্য বিমা একটি গুরুত্বপূর্ণ ঝুঁকি নিরসনের মাধ্যম হতে পারে এবং তাদের আর্থিকভাবে শক্তিশালী করতে পারে। আর্থিক ব্যবস্থায় বিমার অনুপ্রবেশ আর্থিক অবকাঠামো ও সার্বিক অর্থনীতির চাকাকেও মজবুত করবে।

গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড ও সহযোগী প্রতিষ্ঠান অক্সফাম বাংলাদেশ এবং স্থানীয় সহযোগী প্রতিষ্ঠান সানক্রেড ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন পরীক্ষামূলক আকারে সম্প্রতি সিলেটের সুনামগঞ্জের তাহিরপুর হাওর এলাকায় ৩১৬ জন কৃষককে সূচকভিত্তিক শস্য বিমা প্রদান করে।

বন্যাপ্রবণ হাওর এলাকায় আর্থিক ক্ষতির ঝুঁকিগ্রস্ত কৃষকের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের তত্ত্বাবধানে এ পরীক্ষামূলক উদ্যোগটি গ্রহণ করা হয়েছিল।

হাওর এলাকার কৃষকদের এ বিমা দাবি প্রাপ্তি গ্রিন ডেল্টার বিশ্বাসের সত্যতা ও হাওরাঞ্চলের এ পরীক্ষামূলক উদ্যোগের সফলতাই নির্দেশ করে। এ সফলতা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে বলা যায়, অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের সব কৃষককে বিমা সুরক্ষার আওতায় আনা সম্ভব হবে। বিজ্ঞপ্তি

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..