প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

হাবিপ্রবিতে বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস উদযাপন

প্রতিনিধি, হাবিপ্রবি: দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস-২০২১ উদযাপন করা হয়েছে।

আজ রোববার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন-১ এর সামনে বেলুন উড্ডয়ন করে দিবসটির বিশ্ববিদ্যালয় অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন উপাচার্য প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামান। পরে বেলুন উড্ডয়ন শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইকিউএসি-এর কনফারেন্স রুমে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামান। এছাড়াও আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. বিধান চন্দ্র হালদার ও কৃষি অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. রওশন আরা।

অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন হাবিপ্রবির মৃত্তিকা বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. শাহাদাৎ হোসেন খান। আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন মৃত্তিকা বিভাগের প্রফেসর ড. শাহ্ মইনুর রহমান। অনুষ্ঠানটিতে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর, কৃষি অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যান, অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ, কর্মকর্তাবৃন্দ ও অনুষদের শিক্ষার্থীবৃন্দ।

আলোচনা সভায় ড. এম. কামরুজ্জামান বলেন, আমাদের কৃষি ও পরিবেশের ওপর লবণাক্ত মাটির বিরূপ প্রভাব সম্পর্কে গবেষক, বিজ্ঞানী, শিক্ষক, কৃষক সবাইকে আরও সচেতন হতে হবে। মাটির অবক্ষয় কিভাবে সর্বোত্তম উপায়ে নিয়ন্ত্রণ করা যায়, তা নির্ধারণের জন্য লবণাক্ত মাটি সম্পর্কে আরও বিশদ জ্ঞান অর্জনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। টেকসই পানি, জলবায়ু, পরিবেশ ও ভূমি ব্যবস্থার জন্য দীর্ঘমেয়াদি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে একটি সমৃদ্ধ ও উন্নত দেশের মর্যাদা অর্জনের লক্ষ্যে ডেল্টা প্ল্যান ২১০০ প্রণয়ন করেছে সরকার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার কৃষি উন্নয়নে সব সময় আন্তরিক। সফল উৎপাদন বাড়াতে ভর্তুকি মূল্যে সার ও বীজ সরবরাহ করা হয়েছে। কৃষি যান্ত্রিকীকরণের জন্য যন্ত্রপাতি ক্রয়ের জন্যও ভর্তুকি প্রদান করা হচ্ছে। কৃষিতে আমাদের অগ্রগতি অভূতপূর্ব। কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের কৃষি দেশের খাদ্য নিরাপত্তায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে।

উল্লেখ্য, উদ্ভিদের জন্ম-বৃদ্ধিতে ও মানবকল্যাণে মৃত্তিকার গুরুত্বকে স্বীকৃতি দিতেই বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস পালন করা হয়ে থাকে। মৃত্তিকার সঠিক পরিচর্যার গুরুত্ব বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য মৃত্তিকা বিজ্ঞানের আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন (আইইউএসএস) ২০০২ সালে বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস পালনের প্রস্তাব উত্থাপন করে। পরে এটি জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য সংস্থার অনুমোদন লাভের পর প্রতি বছর ৫ ডিসেম্বর বিশ্বব্যাপী দিবসটি উদযাপিত হয়।