প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

হিলিতে পেঁয়াজের দাম কমেছে কেজিতে ছয় টাকা

প্রতিনিধি, হিলি (দিনাজপুর): হিলি স্থলবন্দরে পাইকারিতে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম কেজিপ্রতি কমেছে ছয় থেকে আট টাকা। এক সপ্তাহ আগে যে পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল ২৬ থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে, বর্তমানে সে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২২ টাকায়। হিলি বন্দরে পেঁয়াজের দাম কমায় খুশি পাইকাররা। এদিকে পেঁয়াজের দাম কমায় স্বস্তি ফিরেছে নিন্ম আয়ের মানুষের মাঝে।

হিলি বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা মফিজ উদ্দিন বলেন, এক সপ্তাহ আগে হিলি বাজারে ৩০ থেকে ৩২ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনতে হয়েছে। কিন্তু এখন পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমেছে। এতে সাধারণ ক্রেতাদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে। গত সপ্তাহের তুলনায় এখন কিছুটা দাম কমে বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ২৮ টাকায়।

বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা রহিমা বেগম বলেন, গত সপ্তাহ থেকে আজকে (গতকাল) পেঁয়াজের দাম কম, তাই পাঁচ কেজি পেঁয়াজ কিনলাম। এ রকম দাম থাকলে আমাদের জন্য ভালোই হয়।

আরেক জন বলেন, কয়েক দিনের তুলনায় পেঁয়াজের দাম অনেকটাই কম। আজকে পেঁয়াজ কিনলাম ২৬ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহে পেঁয়াজ কিনেছিলাম ৩০ থেকে ৩২ টাকায়।

পেঁয়াজ কিনতে আসা আরেকজন বলেন, আগের চেয়ে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমছে। আর একটু কমলে আমাদের জন্য ভালো হয়।

হিলি বাজারের আড়তদার ফিরোজ বলেন, পাবনা ও মেহেরপুরসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নতুন পেঁয়াজ উঠেছে। দেশি পেঁয়াজের আমদানি বেশি হওয়ার কারণে দাম কমে গেছে। গত সপ্তাহে যে পেঁয়াজ বিক্রি করেছি ৩০ থেকে ৩২ টাকায়, আজকে সে পেঁয়াজ বিক্রি করছি ২৫ থেকে ২৮ টাকায়। দাম কমায় সেই রকম ক্রেতা নেই বাজারে।

পেঁয়াজ আমদানিকারক হারুন-উর রশিদ হারুন বলেন, বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত রয়েছে। তবে আমদানির পরিমাণ মাঝে মাঝে ওঠানামা করছে। কারণ দেশের বাজারে এখন দেশীয় পেঁয়াজের সরবরাহ রয়েছে, যেজন্য আমদানিকারকরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন। হিলি কাস্টমসের তথ্যমতে, গত সপ্তাহে ছয় কর্মদিবসে ভারতীয় ৫৬ ট্রাকে এক হাজার ৫৬৪ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করা হলেও গতকাল সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস শনিবারে আমদানি করা হয়েছে ভারতীয় ১১ ট্রাকে  ২৯৭ মেট্রিক টন পেঁয়াজ।