প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

হিলিতে বেড়েছে শুকনো মরিচের দাম

প্রতিনিধি, হিলি (দিনাজপুর): দ্রব্যমূল্যের দাম লাগামহীনভাবে বেড়েই চলেছে। কে কার আগে কত টাকা বাড়াবে তার চলছে প্রতিযোগিতা। হিলি বাজারে গিয়ে দেখা গেল শুকনা মরিচের এমনই এক অবস্থা। যখন তেল, চালসহ নিত্যপণ্যের দাম যখন ঊর্ধ্বগতি তখন শুকনা মরিচ কেন পিছিয়ে থাকবে। তাই শুকনা মরিচেরও দাম বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি কেজি শুকনা মরিচের দাম বেড়েছে কেজিতে ৭০ থেকে ৮০ টাকারও বেশি। এতে নাভিশ্বাস সাধারণ ক্রেতারা।

গতকাল বুধবার সকালে হিলি বাজারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিকেজি শুকনা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা, কারেন্ট ৩২০ থেকে ৩৪০ টাকা। যা গত দুই  সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ১৬০ টাকা, কারেন্ট ২৮০ টাকা কেজিতে। বাজারে সরবরাহ কমের কারণেই দাম বেড়েছে বলে দাবি ব্যবসায়ীদের।

কাঁচাবাজারের আড়তদার মনিরুল আলম জানান, মরিচ হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি হলেও আমাদের আনতে হচ্ছে বগুড়া থেকে। কারণ আমদানিকারকরা শুকনো মরিচ হিলি দিয়ে আমদানি করলেও ব্যবসায়ীরা এক জোট হয়ে এখানে বিক্রি না করে বগুড়া নিয়ে গিয়ে বিক্রি করছে। তাই বগুড়া থেকে নিতে গাড়ি ভাড়াসহ বিভিন্ন কারণে শুকনো মরিচের দাম বেশি পড়ে যাচ্ছে।

আরেক বিক্রেতা বলেন, হিলি থেকে আমদানি হওয়া শুকনো মরিচ যদি হিলি থেকেই নিতে পারতাম, তাহলে দামটা কমে পেতাম। আমরাও কম দামে বিক্রি করতে পারতাম। ব্যবসায়ীরা তাদের কিছু লাভের আশায় ঐক্যজোট হয়ে পণ্যটি বগুড়া নিয়ে বিক্রি করে। তার পর আমাদের বগুড়া থেকে নিতে হয়। হাত বদল এবং কেয়ারিং খরচ দিয়ে আমাদের দাম অনেক পড়ে যায়। তাই পণ্যটির দাম বেড়ে গেছে।

বাজারে সবজি কিনতে আসা কয়েকজন বলেন, দ্রব্যমূল্যের দাম যেভাবে বাড়তে শুরু করেছে তাতে আমাদের নি¤œ আয়ের মানুষের না খেয়ে থাকতে হবে। চাল তেল এখন আবার শুকনো মরিচের দাম লাগামহীনভাবে বাড়তে শুরু করেছে। দুই সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিকেজি শুকনো মরিচের দাম বেড়েছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা। এভাবে চললে আমরা আর চলতে পারব না।

হিলি কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা এস এম নুরুল আলম খান বলেন, হিলি দিয়ে শুকনো মরিচ আমদানি স্বাভাবিক রয়েছে। শুকনো মরিচ একটি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য, তাই আমরা শুল্ক শেষে দ্রুত ছাড়করণ করে থাকি। হিলি বন্দর দিয়ে গত ১ জানুয়ারি থেকে ২৩ মে পর্যন্ত শুকনো মরিচ আমদানি হয়েছে ২ লাখ ৬০ হাজার কেজি, যা থেকে রাজস্ব আদায় হয়েছে প্রায় ৫০ লাখ ২১ হাজার টাকা।