হুয়াওয়ে সিএফও’র মুক্তির পরই দুই কানাডীয়কে মুক্তি দিল চীন

শেয়ার বিজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের অনুরোধে হুয়াওয়ের প্রধান অর্থনৈতিক কর্মকর্তা (সিএফও) মেং ওয়ানঝুকে কানাডা ছেড়ে দেয়ার পরই শুক্রবার কানাডীয় দুই কূটনীতিবিদ স্পেভর ও কভরিগকে মুক্তি দিয়েছে চীন। চীনা কর্তৃপক্ষ কানাডার দুই নাগরিককে ছেড়ে দেয়ার পর তারা দেশের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্র–ডো। খবর: বিবিসি, রয়টার্স।

কানাডার পুলিশ যুক্তরাষ্ট্রের গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় চীনা কোম্পানি হুয়াওয়ের শীর্ষ কর্মকর্তা ওয়ানঝুকে ধরার অল্প সময়ের মধ্যেই ২০১৮ সালে বেইজিং গুপ্তচরগিরির অভিযোগে মাইকেল স্পেভর ও মাইকেল কভরিগ নামের ওই দুই কানাডীয়কে আটক করেছিল চীন।

মার্কিন কৌঁসুলিদের সঙ্গে চুক্তিতে পৌঁছানোর পর হুয়াওয়ের সিএফও মেং ওয়ানঝুকে কানাডা ছেড়ে দেয়ার পর স্পেভর ও কভরিগের মুক্তির খবর মেলে। মেং শুক্রবারই চীনের উদ্দেশ্যে রওনা হন। হুয়াওয়ে সিএফওকে আটককাণ্ড বেইজিং ও অটোয়ার মধ্যে উত্তেজনা বাড়িয়ে দিয়েছিল।

শুক্রবার কানাডার প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো স্পেভর ও কভরিগের ছাড়া পাওয়ার খবর জানিয়ে বলেন, এ দুই কানাডীয়কে ‘অবিশ্বাস্য কঠিন অগ্নিপরীক্ষার’ মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে। তিনি বলেন, আমাদের সবার জন্য ভালো সংবাদ হচ্ছে, তারা তাদের পরিবারের কাছে ফিরতে বাড়ির পথে রওনা হয়েছে। গত ১০০০ দিন তারা দৃঢ়তা, অধ্যবসায় ও সহনশীলতা দেখিয়েছে।

স্পেভর ও কভরিগ দুজনই কানাডা সময় গতকাল দেশে নামেন, তাদের সঙ্গে চীনে কানাডার রাষ্ট্রদূত ডমিনিক বার্টনও ছিলেন।

সাবেক কূটনীতিক কভরিগ ব্রাসেলসভিত্তিক থিঙ্ক ট্যাঙ্ক ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপে কাজ করতেন। আর স্পেভর এমন একটি সংস্থার প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য, যাদের মনোযোগ উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ব্যবসা ও সাংস্কৃতিক যোগাযোগে।

চলতি বছরের আগস্টে চীনের একটি আদালত স্পেভরকে ১১ বছরের কারাদণ্ড দেয়। তবে কভরিগের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

মেংয়ের বিরুদ্ধে আনা জালিয়াতির অভিযোগ বিষয়ে মার্কিন কৌঁসুলিদের সঙ্গে একটি চুক্তিতে পৌঁছানোর পর শুক্রবার কানাডার এক বিচারক হুয়াওয়ের সিএফওকে ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেন। কানাডায় গ্রেপ্তার হওয়ার আগে মেংয়ের বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগ আনেন মার্কিন কৌঁসুলিরা।

ব্যাংক জালিয়াতি এবং স্কাইকম টেক নামের এক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং ব্যবস্থা ব্যবহার করে অর্থ ও পণ্য ইরানে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছিল মেংয়ের বিরুদ্ধে। মেং এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে মার্কিন বিচার বিভাগ জানিয়েছে, মেং ছাড়া পেলেও হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে বিচারের প্রস্তুতি চলবে।

সর্বশেষ..