বিশ্ব সংবাদ

১০ কোটিতে পৌঁছাতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের আগাম ভোট

শেয়ার বিজ ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোট গ্রহণ আগামী ৩ নভেম্বর। তবে এরই মধ্যে আগাম ভোট দিয়েছেন ছয় কোটি ২০ লাখ ভোটার। ২০১৬ সালের চেয়ে এ সংখ্যা এক কোটি ২০ লাখ বেশি। এনবিসি নিউজ ডিসিশন ডেস্ক/টার্গেট স্মার্টের সমীক্ষায় এ তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের মতে, এবার আগাম ভোটের সংখ্যা ৯ থেকে ১০ কোটিতে পৌঁছাবে। খবর: সিএনবিসি।

২০১৬ সালের নির্বাচনে আগাম ভোট পড়েছিল পাঁচ কোটি। তবে এনবিসি নিউজ ডিসিশন ডেস্কের অনুমান সত্য হলে এবার এ সংখ্যা হবে তার দ্বিগুণ। এনবিসি নিউজকে ভোটিং ডাটা সরবরাহ করে ডেমোক্র্যাটিক পলিটিক্যাল ডাটা ফার্ম টার্গেট স্মার্ট। তাদের সরবরাহ করা তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই নির্বাচনী ভবিষ্যদ্বাণী করে থাকে সংবাদমাধ্যমটি।

দোদুল্যমান রাজ্যগুলোতে এবার আগাম ভোটের হার উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়েছে। মেইলেও নিজেদের রায় জানিয়ে দিয়েছেন বিপুলসংখ্যক ভোটার। নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে গুরুত্বপূর্ণ যে ‘ব্যাটলগ্রাউন্ড’ বা ‘দোদুল্যমান’ রাজ্যগুলো রয়েছে তার একটি পেনসিলভানিয়া। সেখানে এরই মধ্যে আগাম ভোট দিয়েছেন প্রায় ১৪ লাখ মানুষ। ২০১৬ সালের নির্বাচনে সেখানে মোট আগাম ভোটের সংখ্যা ছিল ১২ লাখের কিছু বেশি। কিন্তু এবার নির্বাচনের এক সপ্তাহ আগেই এ সংখ্যা গতবারের পরিসংখ্যান ছাড়িয়ে গেছে।

মিশিগান ও উইসকনসিনের মতো দোদুল্যমান রাজ্যগুলোতেও এবার আগাম ভোটের জয়জয়কার। দুই রাজ্যেই এবার যে পরিমাণ আগাম ভোট পড়েছে সেটি গত বারের প্রায় দ্বিগুণ। ২০১৬ সালের নির্বাচনে পেনসিলভানিয়া, মিশিগান ও উইসকনসিনে সামান্য ব্যবধানে জয় পেয়েছিলেন ট্রাম্প। ওহাইও, টেক্সাস ও জর্জিয়ার মতো রাজ্যগুলোতেও এবার প্রচুর আগাম ভোট পড়েছে। টেক্সাসে এরই মধ্যে ৬৯ লাখ আগাম ভোট পড়েছে। গতবারের চেয়ে এ সংখ্যা প্রায় ১৪ লাখ বেশি। এ রাজ্যের ৪০ শতাংশেরও বেশি ভোটার এরইমধ্যে তাদের রায় জানিয়ে দিয়েছেন।

নর্থ ক্যারোলিনা, টেক্সাস, ফ্লোরিডা, জর্জিয়া ও আরিজোনার মতো তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ রাজ্যগুলোতেও এবার আগাম ভোটদানের হার উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বেড়েছে। এ রাজ্যগুলোতে গতবার ট্রাম্প ও হিলারি ক্লিনটন যৌথভাবে যে ভোট পেয়েছিলেন এবার এরই মধ্যে তার চেয়ে বেশি আগাম ভোট পড়েছে।

সিবিএস নিউজ/ইউগভের সমীক্ষা বলছে, ফ্লোরিডায় আগাম ভোট দেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ৬১ শতাংশই ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেনের সমর্থক হিসেবে পরিচিত। সেখানে ট্রাম্প সমর্থকদের মধ্যে আগাম ভোটদানের হার ৩৭ শতাংশ। নর্থ ক্যারোলিনা ও জর্জিয়ার মতো রাজ্যগুলোর চিত্রও প্রায় রকম। এসব রাজ্যেও আগাম ভোটে এগিয়ে আছেন জো বাইডেন।

দৃশ্যত এবার অনিয়মিত ভোটাররা নির্বাচন নিয়ে আগ্রহী হচ্ছেন। দলে দলে আগাম ভোট দিচ্ছেন তারা। বিশ্লেষকদের ধারণা, ডেমোক্র্যাটদের জেতানোর চাইতে ট্রাম্পকে ঠেকাতেই এবার অনিয়মিত ভোটাররাও নির্বাচনে আগ্রহী হচ্ছেন। এ রেকর্ড-সংখ্যক আগাম ভোটই হয়তো পাল্টে দিতে পারে এবারের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোটের সমীকরণ। তবে শেষ পর্যন্ত হোয়াইট হাউসের টিকিট কার হাতে পৌঁছাবে সে সিদ্ধান্ত নেবেন মার্কিন ভোটাররাই। এজন্য অপেক্ষার প্রহর গুনতে হবে আগামী ৩ নভেম্বর পর্যন্ত।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..