দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত খোলা এলসিতে অনুমোদন ভারতের

পেঁয়াজ রপ্তানি

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভারত সরকার ১৪ সেপ্টেম্বর হঠাৎ পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। আর এতে বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ। হঠাৎ পণ্যটির মূল্য বেড়ে যায়। হঠাৎ ভারত সরকার রপ্তানি বন্ধ করায় বিপাকে পড়েন বাংলাদেশের আমদানিকারকরা। তবে সরকারের চেষ্টায় ভারত সরকার কিছুটা ছাড় দিয়েছে। গত ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আমদানির জন্য বাংলাদেশ থেকে যত ঋণপত্র খোলা হয়েছে সেসব পেঁয়াজ ছাড় দেবে ভারত সরকার।

ভারত সরকারের বৈদেশিক বাণিজ্য শাখার অতিরিক্ত মহাপরিচালক বিজয় কুমার স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়, যেসব পেঁয়াজ আমদানির জন্য ১৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ঋণপত্র খোলা হয়েছে। তা আগামী ৭ অক্টোবরের মধ্যে ছাড় করানোর অনুমোদন দেয় ভারত। বৈদেশিক বাণিজ্যিক নীতি (২০১৫-২০) অনুযায়ী ভারত সরকার পেঁয়াজ ছাড়ের এ আদেশ দিয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বছরও ভারত সরকার হঠাৎ পেঁয়াজের রপ্তানি মূল্য বাড়ায়। এরপর গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর ভারত সরকার হঠাৎ পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। আর এতে বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ। রাতারাতি পণ্যটির মূল্য ১০০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে গিয়েছিল। এরপর দাম বাড়তে বাড়তে প্রতি কেজি প্রায় ৩০০ টাকা পর্যন্ত ওঠে। চলতি বছর সরকার কৃষকদের উৎসাহী করে পেঁয়াজ আবাদে। তবে চলতি বছরও ভারত সরকার হঠাৎ পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। এতে পেঁয়াজের কেজি শতকে পৌঁছে। তবে সরকারের কঠোর নজরদারির কারণে দাম কিছুটা কমে আসে। বর্তমানে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৮০ থেকে ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরকার টিসিবির মাধ্যমে ৩০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি করছেন। মিয়ানমার থেকে একটি চালান দেশে পৌঁছেছে। অন্যান্য দেশ থেকেও পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত রয়েছে বলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ ➧

সর্বশেষ..