শেষ পাতা

২০০৮ সালে বাতিল করা লাইসেন্স ২০২৩ পর্যন্ত নবায়ন!

চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস

সাইদ সবুজ, চট্টগ্রাম: নিজস্ব পণ্য অথবা কমিশনের বিনিময়ে আমদানিকারকের পক্ষে শুল্ক স্টেশনে পণ্য খালাসে সহায়তা করে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট। এছাড়া মূল লাইসেন্সে উল্লিখিত কাস্টমস স্টেশন ছাড়াও অন্য কাস্টমস স্টেশনে রেফারেন্স লাইসেন্সের মাধ্যমে কাজ করার সুযোগ রয়েছে। সেক্ষেত্রে মূল লাইসেন্সের কপি ও প্রয়োজনীয় দলিলাদিসহ আবেদন করতে হয়। আর লাইসেন্সিং কর্তৃপক্ষ দলিলাদি যাচাই-বাছাই করে আবেদন গ্রহণ করলে তবেই কাজ করার সুযোগ থাকে। তবে কোনো কারণে মূল্য লাইসেন্স বাতিল হলে রেফারেন্স লাইসেন্স নেওয়ার সুযোগ থাকে না।

যদিও চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে ঘটেছে উল্টো ঘটনা। ২০০৮ সালে ভোমরা শুল্ক স্টেশনে মূল লাইসেন্স বাতিল হলেও চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস সেই লাইসেন্সের বিপরীতে রেফারেন্স লাইসেন্স নবায়ন করেছে ২০২৩ সাল পর্যন্ত। চিটাগং কাস্টমস সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসাাসিয়েশনের বন্দরবিষয়ক সম্পাদক মো. লিয়াকত আলী হাওলাদারের প্রতিষ্ঠান ‘মেসার্স এল এইচ ইন্টারন্যাশনাল’-এর মূল লাইসেন্স ২০০৮ সালে ভোমরা শুল্ক স্টেশন বাতিল করে। কিন্তু মেসার্স এল এইচ ইন্টারন্যাশনাল রেফারেন্স লাইসেন্স চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে ২০১৮ সালের ১৪ নভেম্বর থেকে ২০২৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত নবায়ন করা হয়েছে।

যদিও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের প্রজ্ঞাপন ‘এস,আর,ও নং- ১৭৪-আইন/২০১৬/৩৬/কাস্টমস’ অনুসারে জানা যায়, রেফারেন্স লাইসেন্স নেওয়ার ক্ষেত্রে কোনো কাস্টমস এজেন্ট মূল লাইসেন্সে উল্লিখিত কাস্টমস স্টেশন ব্যতীত অন্য কোনো কাস্টমস স্টেশনের রেফারেন্স লাইসেন্স প্রাপ্তির জন্য মূল লাইসেন্সের কপি এবং বিধি-৫ এ বর্ণিত দলিলাদিসহ আবেদন করতে হবে এবং লাইসেন্সিং কর্তৃপক্ষ ওই দলিলাদি যাচাই-বাছাই করে আবেদনকারীর মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণের মাধ্যমে রেফারেন্স লাইসেন্স প্রদান করবে। একই সঙ্গে কাস্টমস এজেন্টের ন্যূনতম ১০ বছরের সন্তোষজনক কার্যক্রম পরিচালনা করার অভিজ্ঞতার কথাও বলা হয়েছে। যদিও রেফারেন্স লাইসেন্সের ক্ষেত্রে কাস্টম হাউস মূল কাস্টম হাউসে চিঠি পাঠিয়ে ওই প্রতিষ্ঠানের সব বিষয়ের তথ্যসহ পাঁচ বছরের সন্তোষজনক কার্যক্রম মূল্যয়ন করে।

কিন্তু চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস লিয়াকত আলী হওলাদারের প্রতিষ্ঠান মেসার্স এল এইচ ইন্টারন্যাশনালের রেফারেন্স লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে কোনোটিই করেনি। জানা যায়, লিয়াকত আলী হাওলাদার বাতিলকৃত মূল লাইসেন্স কাস্টমসের লাইসেন্স শাখায় দাখিল না করে ২০০৯ সাল থেকে চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে, যা ২০১৮ সালে নবায়ন করা হয় ২০২৩ সাল পর্যন্ত।

তবে এই জালিয়াতি এরই মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) দৃষ্টিগোচর হলে, চলতি বছরের ১৯ আগস্ট রেফারেন্স লাইসেন্সটি বাতিল করতে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসকে নির্দেশ দেয় এনবিআর। এনবিআর থেকে পাঠানো ০৮.০১.০০০০.০৫.০০৩.১৬/১৮০ নং নথিতে বলা হয়, কাস্টমস এজেন্ট লাইসেন্সিং বিধিমালা ২০১৬-এর বিধি ৯(১)(ক)-তে লাইসেন্স নবায়নের ক্ষেত্রে ‘মূল লাইসেন্সের কপি’ দাখিলের বিধান রয়েছে। কিন্তু সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট মেসার্স এল এইচ ইন্টারন্যাশনালের মূল লাইসেন্স ২০০৮ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি বাতিল হলেও চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস ২০১৮ সালের ১৪ নভেম্বর থেকে ২০২৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত নবায়ন করা হয়, যা বিধিসম্মত হয়নি বলে প্রতীয়মান। এক্ষেত্রে বিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে জানতে মেসার্স এলএইচ ইন্টারন্যাশনালের স্বত্বাধিকারী মো. লিয়াকত আলী হওলাদারের সঙ্গে কথা হলে তিনি শেয়ার বিজকে বলেন, ‘আমার মূল্য লাইসেন্স কোনো দুর্নীতি বা শুল্ক ফাঁকির জন্য বাতিল হয়নি। আমার এই লাইসেন্স ১৯৮৬ সালের করা। ওখানে কোনো কাজ না করায়, আমি নিজেই স্যারেন্ডার করেছি। ওই সময় রেফারেন্স লাইসেন্স বলে কিছু ছিল না। ২০০৯ সালে রেফারেন্স লাইসেন্স আসে, কিন্তু বর্তমানে এনবিআর থেকে একটা চিঠি এসেছে। তাই বিষয়টা আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে শেষ করতে চাই। আমি আপিল করার ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের কমিশনার মোহাম্মদ ফখরুল আলম শেয়ার বিজকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি বিস্তারিত জানি না। আপনি লাইসেন্স কমিটির সঙ্গে কথা বললে তারা আপনাকে বিষয়টা বিস্তারিত জানাতে পারবে। তবে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে কীভাবে আইন লঙ্ঘন করে লাইসেন্স নবায়ন করেছে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস এবং মেসার্স এল এইচ ইন্টারন্যাশানালের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে এমন প্রশ্নের উত্তর পেতে লাইসেন্স কমিটির প্রধান চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসের অতিরিক্ত কমিশনার ড. আবু নূর রাশেদ আহম্মেদের সঙ্গে তার অফিসে গিয়ে দেখা করা যায়নি। একই সঙ্গে দুই দিন একাধিক বার ফোন করলেও রাশেদ আহম্মেদ ফোন রিসিভ না করায় কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..