প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

২০১৬ সালে কম্বোডিয়ার চাল রফতানি কমেছে

শেয়ার বিজ ডেস্ক: ২০১৬ সালে কম্বোডিয়ার চাল রফতানি আগের বছরের তুলনায় কিছুটা কমেছে। গত বছর রফতানি প্রবৃদ্ধি ছিল মাত্র দশমিক সাত শতাংশ। ২০১৪ সালের পর এ প্রবৃদ্ধি সর্বনিম্ন। দেশটির সরকারি এক বিবৃতিতে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। খবর ব্যাংকক পোস্ট। কম্বোডিয়ার কৃষি, বন ও মৎস্য মন্ত্রণালয়ের কৃষি বিভাগের পরিচালক হিন ভ্যানহান জানান, গত বছর দেশটি মাত্র ৫ লাখ ৪২ হাজার ১৪৪ টন চাল রফতানি করেছে। প্রথম প্রান্তিক ও ডিসেম্বর চাল রফতানির হার ছিল খুবই কম। এ দুই মাসের পতন, সব মিলিয়ে রফতানিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

প্রতিবেদন মতে, গত বছরের প্রথম প্রান্তিকে কতিপয় খরায় চাল উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া গত বছর শস্যপেশাকারীরা অভিযোগ করছিল ভিয়েতনাম থেকে কম্বোডিয়ায় নি¤œমানের চাল প্রবেশ করেছে। গত মার্চে কলগুলোর মালিকরা এবং রফতানিকরকরা সরকারের কাছে এক অভিযোগ করে চিঠি লিখেছিল। তারা বলেছিল, এসব কারণে রফতানি ও দেশের অভ্যন্তরে চাল বিক্রিতে ব্যাপক প্রতিযোগিতা থাকবে। ভিয়েতনাম থেকে নিম্ন মানের চাল আসার যে প্রবাহ চলছিল তাতে তারল্য সংকটের সৃষ্টি হতে পারে বলেও অভিযোগ করেছিল তারা। ওই সময় কৃষক, কলের মালিক ও রফতানিকারকদের দেউলিয়া অবস্থা ব্যাপক আকার ধারণ করেছিল।

সেপ্টেম্বরে কৃষকদের কাছ থেকে ধান কেনার জন্য সরকার ২৭ মিলিয়ন ডলার ঋণ দিয়েছিল কল মালিকদের। ভ্যানহান বলেন, ওই চালের দাম কমে যাওয়ায় শুধু কম্বোডিয়ার কল মালিকদের আয়েই নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি, পাশ্ববর্তী দেশগুলোতেও তার প্রভাব পড়েছে। কম্বোডিয়া রাইস ফেডারেশনের (সিআরএফ) ভাইস প্রেসিডেন্ট হান ল্যাক বলেন, ২০১৬ সালের চাল রফতানি হ্রাস প্রত্যাশিতই ছিল। আমরা আগেই পূর্বাভাস দিয়েছিলাম।