প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

২০১৬-১৭ অর্থবছর:ভারতে মাথাপিছু আয় বাড়বে ১০ শতাংশ

শেয়ার বিজ ডেস্ক: চলতি ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ভারতে মাথাপিছু আয় প্রায় ১০ শতাংশ বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। এ সময়ে দেশটির মাথাপিছু আয় ১ লাখ ৩ হাজার ৭ রুপি হতে পারে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে যা ছিলো ৯৩ হাজার ২৯৩ রুপি। খবর খালিজ টাইমস।

সম্প্রতি ভারতের পরিসংখ্যা বিভাগ সেন্ট্রাল স্ট্যাটিসস্টিক (সিএসও) এ তথ্য জানায়। ২০১৬-১৭ অর্থবছরের জাতীয় আয়ের প্রথম প্রাক্কলন বিষয়ে সংস্থাটির প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়, চলতি মূল্যে মাথাপিছু আয় কিছুটা বাড়বে। তবে এ সময়ে জিডিপির প্রবৃদ্ধি আগের অর্থবছরের তুলনায় কমতে পারে। এদিকে ২০১১-১২ ভিত্তি বছরের হিসাবে চলতি অর্থবছর দেশটির প্রকৃত মাথাপিছু আয় ৮১ হাজার ৮০৫ রুপিতে পৌঁছাবে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে যা ছিল ৭৭ হাজার ৪৩৫ রুপি।

স্থির মূল্যে চলতি বছর মাথাপিছু আয়ের প্রবৃদ্ধি হবে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ। আগের অর্থবছরে এটি ছিল ৬ দশমিক ২ শতাংশ।

এদিকে সিএসও’র তথ্যমতে, এ অর্থবছরে ভারতের মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি হবে কমে ৭ দশমিক ১ শতাংশে দাঁড়াবে। ম্যানুফ্যাকচারিং খনিজ ও নির্মাণ খাতের কার্যক্রমে শ্লথগতি থাকায় দেশটির মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) কমবে বলে সরকারিভাবে জানানো হয়েছে। তবে ৫০০ ও ১০০০ রুপির নোট প্রত্যাহারের প্রভাবেই প্রবৃদ্ধি কমবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরের প্রাক্কলিত জিডিডি ৭ দশমিক ১ শতাংশ। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে জিডিপি ছিল ৭ দশমিক ৬ শতাংশ।

নভেম্বরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশটির ৮৬ শতাংশ মুদ্রা প্রত্যাহার করার পরই বিশ্লেষকরা সতর্ক করেছিল জিডিপিতে এর প্রভাব নিয়ে। তাদের সতর্কতার পর সরকারিভাবে প্রাক্কলিত জিডিপির হ্রাসের তথ্য প্রকাশ করল। তবে প্রধান পরিসংখ্যানবিদ টিসিএ অনন্ত বলেন, প্রাক্কলিত জিডিপিতে নভেম্বর ও ডিসেম্বরের ডেটা বিবেচনা করা হয়নি। তিনি বলেন, নোট প্রত্যাহারের কারণে প্রাক্কলিত জিডিপি কম হয়েছে এটা মনে করার কোনো সুযোগ নেই। কারণ এ প্রাক্কলনে নভেম্বরের চিত্র অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।