বাণিজ্য সংবাদ

২০১৮ সালের সম্ভাব্য প্রযুক্তি হবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক: টেলিনর রিসার্চের বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তি বিশ্লেষকদের ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী ২০১৮ সালে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই), বিগ ডেটা, ক্রিপ্টো-কারেন্সি ও স্বচালিত বাহনের মতো প্রযুক্তি বিশ্ববাজারে চলে আসবে। ডিজিটাল বাংলাদেশের ধারাবাহিক যাত্রার দিকে সম্ভাব্য এসব প্রযুক্তি আমাদের এখানেও চলে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। গতকাল বুধবার প্রতিষ্ঠানটি আনুষ্ঠানিকভাবে এ গবেষণা প্রতিবেদন বাংলাদেশে প্রকাশ করে।

এ নিয়ে হেড অব টেলিনর রিসার্চ বিয়র্ন টালে স্যান্ডবার্গ বলেন, ‘নীতিমালা, গ্রাহকের পছন্দ ও প্রযুক্তির সর্বব্যাপী বিস্তারের কারণেই সাধারণত বড় ধরনের পরিবর্তন ঘটে। এক্ষেত্রে মোবাইল টেলিফোন ও গাড়ি অন্যতম দুটি উদাহরণ। ২০১৮ সালে এ তিন ক্ষেত্রেই গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন আসবে। ভবিষ্যৎ প্রযুক্তির ক্ষেত্রে আমরা এ প্রবণতাগুলোকে বেছে নিয়েছি। কারণ আমরা মনে করি, প্রযুক্তির এ প্রবণতাগুলোর নতুন বছরে শীর্ষে থাকার উজ্জ্বল সম্ভাবনা ও গুরুত্ব রয়েছে।’

২০১৮ সালের মধ্যে প্রযুক্তি খাতের সম্ভাবনাময় সাতটি প্রবণতার কথাই আগে থেকে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন টেলিনর গ্রুপের গবেষণা প্রতিষ্ঠান টেলিনর রিসার্চ। ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী সোশ্যাল মিডিয়া বিহেভিয়ার (সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আচরণ), কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিস্তৃত ব্যবহার, ব্যবসায় ডিপ লার্নিং, এআই ও আইওটিভিত্তিক আর্থিক সেবা এবং অগমেন্টেড রিয়্যালিটিতে অগ্রগতির ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসবে।

টেলিনরের গবেষণা অনুযায়ী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ব্যবহারকারীদের পোস্ট কমে যাচ্ছে এবং ফেসবুক নিউজফিডে আসা প্রাসঙ্গিক তথ্যও হ্রাস পাচ্ছে, যা বিভিন্ন ধরনের প্রফেশনাল ও পেইড কন্টেন্টের সংখ্যা বাড়িয়ে তুলছে। সচেতনতা বৃদ্ধি পাওয়ায় ব্যবহারকারীরা তাদের নিউজফিডে ‘ফেক নিউজ’র ব্যাপারে অনেক বেশি সচেতন হয়ে গেছেন। এ প্রসঙ্গে বিয়র্ন টালে স্যান্ডবার্গ বলেন, ‘বোধ হয় প্রাসঙ্গিকতার অভাবেই সংবাদ পেতে, ডিজিটাল উপস্থিতির জন্য এবং বন্ধু-বান্ধব ও আত্মীয়-স্বজনের হালনাগাদ তথ্য পেতে ব্যবহারকারীরা বিকল্প প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করা শুরু করবেন।’

টেলিনর গবেষকদের প্রত্যাশা অনুযায়ী ইতিবাচক প্রভাব বিস্তার করা গেলে ২০১৮ সাল হবে ডিপ লার্নিংয়ের বছর এবং এ বছরই ইন্টারনেট জায়ান্টদের থেকে বেরিয়ে এসে নতুন বাজার খুঁজে নেবে ডিপ লার্নিং।

 

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..