দিনের খবর শেষ পাতা

২০২০ সালে গ্রাহক বেড়েছে ৪৬ লাখ

শীর্ষে গ্রামীণফোন ও রবি আজিয়াটা

হামিদুর রহমান: দেশে করোনার মাঝেও বিগত বছরগুলোর চেয়ে বিপুলহারে গ্রাহক বেড়েছে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর। এর পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমানে দেশে মোবাইল ফোন গ্রাহক প্রায় ১৭ কোটি ছাড়িয়েছে। আর গত এক বছরে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী নতুন গ্রাহক বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ৪৬ লাখ। আর নতুন গ্রাহক বৃদ্ধির শীর্ষে রয়েছে গ্রামীণফোন ও রবি আজিয়াটা।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) প্রাপ্ত তথ্যমতে, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী গ্রাহক ছিল প্রায় ১৬ কোটি ৫৫ লাখ ৬৯ হাজার। ২০২০ সালে ডিসেম্বর শেষে মোট গ্রাহক দাঁড়িয়েছে ১৭ কোটি এক লাখ ৩৬ হাজার। অর্থাৎ এক বছরে গ্রাহক বেড়েছে ৪৫ লাখ ৬৭ হাজার বা দুই দশমিক ৭৬ শতাংশ।

এদিকে ২০১৯ সাল শেষে গ্রামীণফোনের গ্রাহক ছিল প্রায় সাত কোটি ৬৪ লাখ ৬২ হাজার। আর ২০২০ সালে এসে অপারেটরটির গ্রাহক দাঁড়ায় প্রায় সাত কোটি ৯০ লাখ ৩৭ হাজার। অর্থাৎ গ্রাহক বেড়েছে ২৫ লাখ ৭৫ হাজার। আর দ্বিতীয় বৃহত্তম অবস্থানে থাকা মোবাইল অপারেটর রবি আজিয়াটার ২০১৯ সালে গ্রাহক ছিল চার কোটি ৯০ লাখ। আর ২০২০ সালে এসে অপারেটরটির গ্রাহক বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় পাঁচ কোটি ৯ লাখ। অর্থাৎ গ্রাহক বেড়েছে ১৯ লাখ।

এদিকে বাংলালিংকের ২০১৯ সালে গ্রাহক ছিল প্রায় তিন কোটি ৫২ লাখ ৩৯ হাজার। ২০২০ সালে এসে গ্রাহকসংখ্যা দাঁড়ায় প্রায় তিন কোটি ৫২ লাখ ৭২ হাজার। অর্থাৎ মাত্র ৩৩ হাজার গ্রাহক বেড়েছে এক বছরে। অন্যদিকে দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান টেলিটকের ২০১৯ সালে গ্রাহক ছিল প্রায় ৪৮ লাখ ৬৮ হাজার। আর ২০২০ সালে এসে গ্রাহক দাঁড়িয়েছে প্রায় ৪৯ লাখ ২৭ হাজার। এ কোম্পানির গ্রাহক বেড়েছে ৪১ হাজার। 

উল্লেখ্য, দেশের মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী গ্রাহকসংখ্যা। বর্তমানে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী গ্রাহকসংখ্যা প্রায় ১১ কোটি ১৮ লাখ ৭৫ হাজার। এর মধ্যে মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা রয়েছে প্রায় ১০ কোটি ২৩ লাখ ৫৩ হাজার। এছাড়া আইএসপি ও পিএসটিএনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা রয়েছে ৯৫ লাখ ২২ হাজার।

২০১৯ সালে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ৯ কোটি ৯৪ লাখ ২৮ হাজার। এর মধ্যে মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল প্রায় ৯ কোটি ৩৬ লাখ ৮১ হাজার। আর আইএসপি ও পিএসটিএনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী সংখ্যা ছিল প্রায় ৫৭ লাখ ৫০ হাজার। 

দেশে করোনাকালে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও বাণিজ্য থেকে সবকিছু অনলাইনকেন্দ্রিক হওয়ায় মোবাইল ফোন ও ইন্টারনেট দুই মাধ্যমেই গ্রাহক বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় বিকল্প হিসেবে ইন্টারনেট ব্যবহারের মাধ্যমে এখন ক্লাস হচ্ছে। আগে কেবল শহরকেন্দ্রিক হলেও এখন দেশব্যাপী বিপুলহারে এর ব্যবহার বাড়ছে বলে মনে করেন খাতসংশ্লিষ্টরা।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..