প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

২০২০ সালে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে ৮%

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের পূর্বাভাস

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশের অর্থনীতি দ্রুত গতিতে এগোচ্ছে বলে মন্তব্য করেছে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম (ডাব্লিউইএফ)। নিজেদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক ব্লগপোস্টে ২০২০ সালে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) আট শতাংশ প্রবৃদ্ধি হবে বলে পূর্বাভাসও দিয়েছে বৈশ্বিক অর্থনীতিবিষয়ক সংস্থাটি। তখন দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে দ্রুত প্রবৃদ্ধির দেশ হবে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সাময়িক হিসাব অনুযায়ী, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে প্রবৃদ্ধির হার ছিল আট দশমিক ১৩ শতাংশ। ব্লগপোস্টে বাংলাদেশের বিভিন্ন অর্থনৈতিক অর্জনের ভূয়সী প্রশংসা করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা অর্জনের পর যে দেশ অত্যন্ত দরিদ্র ছিল, সেই দেশের গড় প্রবৃদ্ধির হার এখন আট শতাংশ। বাংলাদেশের বিভিন্ন অর্জন বৈশ্বিক মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

পোস্টটিতে আরও বলা হয়, জাতিসংঘ ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে তালিকাভুক্ত করে। সেই পর্যায় থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হওয়ার যোগ্যতা বাংলাদেশ অর্জন করেছে। ২০২৪ সালের মধ্যে এই উত্তরণপ্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। বলা হয়েছে, স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে উন্নীত হওয়ার মানে হলো দেশের মোট জাতীয় আয় যেমন বেড়েছে, তেমনি মানবসম্পদ, অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত ঝুঁকি মোকাবিলার সক্ষমতা বেড়েছে।

প্রতিবেশী দেশ ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, মালদ্বীপ ও আফগানিস্তানের চেয়ে দ্রুতগতিতে বড় হচ্ছে বাংলাদেশের অর্থনীতি। ডাব্লিউইএফের পূর্বাভাস অনুযায়ী, ২০২০ সালে ভারত সাত দশমিক দুই শতাংশ প্রবৃদ্ধি নিয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় দ্বিতীয় স্থানে থাকবে। তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে থাকবে মালদ্বীপ ও নেপাল, যদিও উভয় দেশের প্রবৃদ্ধি হবে একই হারে, ছয় দশমিক তিন শতাংশ। তালিকায় দুই দশমিক চার শতাংশ প্রবৃদ্ধির হার নিয়ে সবার নিচে থাকবে পাকিস্তান।

এতে আরও বলা হয়, জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার কমার কারণে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়েছে। মূলত, সে কারণেই বাংলাদেশের এই উত্তরণ। উদাহরণ হিসেবে ডাব্লিউইএফ দেখিয়েছে, ২০১০ সালে যেখানে দিনে এক ডলার ৯০ সেন্টের চেয়ে কম আয়ের শ্রমিকের সংখ্যা ছিল ৭৩ দশমিক পাঁচ শতাংশ, সেখানে ২০১৮ সালে তা ১০ দশমিক চার শতাংশে নেমে এসেছে।

দেশের রপ্তানির প্রায় ৮৫ শতাংশ আসছে তৈরি পোশাক খাত থেকে। এই খাতের আকার দাঁড়িয়েছে তিন হাজার ৫০০ কোটি ডলারে। পাশাপাশি অর্থনীতির বহুমুখীকরণও ঘটছে। মোট দেশজ উৎপাদনের ৫৩ শতাংশই আসছে সেবা খাত থেকে।

অন্যদিকে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, শিশুমৃত্যু রোধ ও গড় আয়ু বাড়ানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অর্জনের প্রশংসা করা হয়েছে ব্লগপোস্টে। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের পরিবারে নারীর সক্রিয় অংশগ্রহণ ও ভূমিকার প্রশংসা করেছেন অর্থনীতিবিদেরা। নোবেলবিজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনসহ অনেক অর্থনীতিবিদই বাংলাদেশের এই অর্জনের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। ভারতের চেয়ে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার বেশি। তাই ২০২০ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে বলে অনেক সংস্থাই পূর্বাভাস দিয়েছে।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন
ট্যাগ »

সর্বশেষ..