সারা বাংলা

২১ দিনের পাসপোর্ট মিলল পৌনে চার বছরে

যশোর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস

মীর কামরুজ্জামান মনি, যশোর: যশোর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে আবেদনের পৌনে চার বছর পর পাসপোর্ট হাতে পেলেন শফিকুল ইসলাম নামের এক যুবক। দীর্ঘদিন ঘুরেও পাসপোর্ট না পেয়ে বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ করেন তিনি। এর পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল রোববার যশোর আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের উপপরিচালক সালাহ উদ্দিন নিজেই তার কক্ষে শফিকুলকে ডেকে নিয়ে পাসপোর্টটি তুলে দেন।
যশোরের শার্শা উপজেলার গোগা গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে শফিকুল ইসলাম ২০১৬ সালের ১৮ জানুয়ারি পাসপোর্টের জন্য আবেদন করেন। তিনি জানান, তাকে পাসপোর্ট দেওয়ার দিন জানানো হয় একই বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি। নির্ধারিত দিনে তিনি পাসপোর্ট আনতে গেলে তার হাতে পাসপোর্ট দেওয়া হয়। কিন্তু তিনি যখন পাসপোর্ট নিয়ে সংশ্লিষ্ট দফতরের কাউন্টার থেকে বেরিয়ে আসছিলেন তখন আবার তার কাছ থেকে পাসপোর্টটি নিয়ে নেওয়া হয় এবং বলা হয় ২১ ফেব্রুয়ারি এসে পাসপোর্ট নিয়ে যাওয়ার জন্য। ওইদিন গিয়ে তিনি দেখেন, অফিস বন্ধ এবং এরপর থেকে গত ২৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তাকে শুধু দিন দেওয়া হয়েছে, কিন্তু পাসপোর্ট দেওয়া হয়নি। এ বিষয়ে গত ২৮ সেপ্টেম্বর তিনি অভিযোগ করেন পাসপোর্ট অধিদফতরের মহাপরিচালকের কাছে।
মহাপরিচালকের কাছে করা আবেদনে শফিকুল আরও উল্লেখ করেন, ২০১৬ সাল থেকে মাসে চারবার করে প্রায় ১৪৪ বার যশোর পাসপোর্ট অফিসে তিনি ও তার বাবা শার্শার গোগা থেকে আসা-যাওয়া করেছেন। এতে তার যাওয়া-আসায় খরচ হয়েছে প্রায় ৪৩ হাজার টাকা। এই আবেদনের অনুলিপি বিভাগীয় কমিশনার খুলনা, যশোরের ডেপুটি কমিশনার (ডিসি) ও ডিডি পাসপোর্ট অফিস যশোরেও পাঠানো হয়। এরপর যশোর পাসপোর্ট অফিস থেকে খবর দেওয়া হয় শফিকুলকে পাসপোর্ট নিয়ে যাওয়ার জন্য। আবেদনের তিন বছর ৯ মাস পর গতকাল শফিকুলের হাতে পাসপোর্ট তুলে দেন যশোর অফিসের উপপরিচালক।
এ বিষয়ে উপরিচালক সালাহউদ্দিন জানান, তিনি কিছুদিন আগে জানতে পেরে নতুন করে আবেদন করতে বলেন। তার আগের পাসপোর্টটি সিরিয়াল মিসিং হতে পারে। নানা কারণে পাসপোর্ট পেতে দেরি হতে পারে। তবে সুস্পষ্ট বলার সুযোগ নেই, দেরির কারণ। তবে তার হাতে পাসপোর্ট হস্তান্তর করতে পেরে আমার ভালো লাগছে।
পাসপোর্ট পাওয়ার পর শফিকুল আশা করেন, তার মতো এমন হয়রানির শিকার যেন কেউ না হয়।

সর্বশেষ..