প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

২২ লাখ টাকা আত্মসাতে ২৩ বছরের কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক: গ্রাহকদের ২২ লাখ ৫০ হাজার টাকা জাল জালিয়াতি ও প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাতের অভিযোগে ইসলামী ব্যাংকের সাবেক এক কর্মকর্তাকে ২৩ বছরের কারাদণ্ড ও ২২ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছে আদালত।

সোমবার (২১ মার্চ) স্পেশাল জজ কোর্ট নোয়াখালীর বিচারক এ এন এম মোর্শেদ খান এ রায় দিয়েছেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত নুর মোহাম্মদ বাশার ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের লক্ষ্মীপুরের রায়পুর শাখার সাবেক এসবিআইএস সুপার ভাইজার ছিলেন। তার বাড়ি লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার চর লরেঞ্জ।

দুদক সূত্রে জানা যায়, অভিযুক্ত আসামি ব্যাংকে জমা থাকা গ্রাহকদের ২২ লাখ ৫০ হাজার টাকা জাল জালিয়াতি ও প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাৎ করেছেন। ব্যাংকের গ্রাহক মিজানুর রহমান ছিদ্দিক সিনিয়র স্পেশাল জজ কোর্ট লক্ষ্মীপুরে মামলাটি দায়ের করেছিলেন। ২০১৮ সালের পিটিশন মামলাটি তফসিলভুক্ত হওয়ায় আমলে নেয় দুদক। তদন্ত শেষে দুদকের উপপরিচালক জাহাঙ্গীর আলম আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। আজ আদালত রায় দিলো।

রায়ে দণ্ডবিধি ৪০৬ ধারায় ৩ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ২০ লাখ টাকা অর্থদণ্ড, দণ্ডবিধি ৪২০ ধারায় ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড, দণ্ডবিধি ৪৬৭ ধারায় ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড, দণ্ডবিধি ৪৭১ ধারায় ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেন। মোট ২৩ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ২২ লাখ টাকা অর্থদণ্ডের আদেশ দেন।

এদিকে রায় ঘোষণার পর আসামিকে নোয়াখালী জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।