দিনের খবর প্রচ্ছদ প্রথম পাতা

৩০-৫০ কোটি মূলধনি কোম্পানিতে ঝোঁক

নিজস্ব প্রতিবেদক: পরপর দুদিন বাজার নিম্নমুখী থাকায় বেশি পরিশোধিত মূলধন রয়েছে এমন সব কোম্পানিতে বিনিয়োগ বাড়তে দেখা গেছে। বিনিয়োগকারীরা এ ধরনের কোম্পানির শেয়ারে আগ্রহ দেখাচ্ছেন। ফলে বাড়ছে এ ধরনের কোম্পানির শেয়ারদর।

গতকালের বাজার বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, ৩০ থেকে ৫০ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধন রয়েছেÑএ ধরনের কোম্পানিতে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ এসেছে। দিন শেষে দেখা যায়, গতকাল ৭৮ শতাংশের বেশি বিনিয়োগকারী এ ধরনের কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেন।

এদিকে খাতভিত্তিক লেনদেনে চোখ রাখলে দেখা যায়, সবচেয়ে এগিয়ে ছিল বিমা খাত। বহুদিন পর গতকাল একযোগে বাড়তে দেখা যায় এ খাতের শতভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারদর। তবে দর বাড়ার কারণে দেখা যায় বিক্রেতার অভাব। যে কারণে মোট লেনদেনে খাতটির তেমন অবদান চোখে পড়েনি। গতকাল দিন শেষে মোট লেনদেনে এই খাতের একক অবদান দেখতে পাওয়া যায় প্রায় সাত শতাংশ।

অন্যদিকে গতকাল মোট লেনদেনে সবার ওপরে ছিল টেলিকমিউনিকেশন খাত। দিন শেষে মোট লেনদেনে খাতটির অবদান দেখা যায় ২১ শতাংশের বেশি। পরের অবস্থানে ছিল বিবিধ খাত। মোট লেনদেনে এ খাতের অবদান দেখা যায় ১৮ দশমিক ১৯ শতাংশ। এছাড়া ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের লেনদেনে সন্তোষজনক অবদান দেখা যায়।

এদিকে দিন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ১৯ পয়েন্ট বাড়তে দেখা যায়। দিন শেষে সূচক স্থির হয় পাঁচ হাজার ৮২০ পয়েন্টে। তবে লেনদেন সূচক বাড়লেও কমে যায় লেনদেন। গতকাল দিন শেষে ডিএসইতে মোট এক হাজার ২৯০ কোটি টাকার শেয়ার এবং মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট লেনদেন হতে দেখা যায়। এদিকে গতকালের মোট লেনদেনে ২১ কোটি ছিল ব্লক মার্কেটের। এই মার্কেটে মোট অংশগ্রহণ করে ৩৪টি কোম্পানি। কোম্পানিগুলোর ৩৬ লাখ ১৮ হাজার ২৩৩টি শেয়ার ৬৫ বার হাত বদল হয়। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ৫ কোটি ৭০ লাখ ৯ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪ কোটি ৬১ লাখ ৬০ হাজার টাকার সিভিও পেট্রোকেমিক্যালের এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ২ কোটি ৬০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে এসিআইয়ের।

এছাড়া এশিয়া ইন্স্যুরেন্সের ৯৮ লাখ ১৭ হাজার টাকার, এবি ব্যাংকের ৩৩ লাখ ৮৫ হাজার টাকার, অ্যাকটিভ ফাইনের ৫ লাখ ১০ হাজার টাকার, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকোর ৩৬ লাখ ২০ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..