প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

৪০ কারখানায় নিরাপত্তা সেল কার্যকর

নিজস্ব প্রতিবেদক: উচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুসারে প্রত্যেক কর্মস্থল ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নারীদের নিরাপত্তায় যৌন নীপিড়ন তদন্ত সেল গঠন করার কথা রয়েছে। সে অনুযায়ী তৈরি পোশাক খাতের মাত্র ৪০টি কারখানায় এ সেল (ভিএডব্লিউ) চালু হয়েছে। পোশাক কারখানার লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণের লক্ষ্যে জাতিসংঘ জনসংখ্যা কর্মসূচির সহায়তায় বিজিএমইএ পরিচালিত ‘চেঞ্জ’ প্রকল্পের আওতায় ওইসব সেল কার্যকর করা হয়েছে। গতকাল  শনিবার বিজিএমইএ’র অ্যাপারেল ক্লাব মিলনায়তনে দুই বছর মেয়াদি প্রকল্পটির সমাপ্তি উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলা হয়।

এতে বলা হয়, পোশাক খাতে সবচেয়ে বেশি নারীর অংশগ্রহণ রয়েছে। ফলে কর্মক্ষেত্রে নারীদের নিরাপত্তা ও অধিকারের বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। এ অবস্থা বিবেচনায় ২০১২ সালে সর্বপ্রথম চেঞ্জ প্রকল্পটির উদ্যোগ নেওয়া হয়। তবে, এর কার্যক্রম শুরু হয় ২০১৪ সালে। এ প্রকল্পের আওতায় ৩৩ হাজার ৫০০ নারী শ্রমিককে সরাসরি সম্পৃক্ত করা হয়। তাদেরকে কর্মক্ষেত্রে অধিকার ও নিরাপত্তা সম্পর্কে সচেতন করা হয়। এ প্রকল্পের অধীনে রাজধানীর আশুলিয়া, সাভার ও গাজীপুরে ২৪টি, নারায়ণগঞ্জে আটটি এবং চট্টগ্রামে আটটি কারখানায় সচেতনতা বাড়ার কার্যক্রম সম্প্রসারিত হয়। কর্মক্ষেত্রে লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণে শ্রমিকদের বিভিন্নভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় প্রকল্পের আওতায়।

চলতি মাসের শেষে দুই বছর মেয়াদি প্রকল্পটি শেষ হবে। এর সমাপ্তি উপলক্ষে গণমাধ্যমকর্মীদের ব্রিফিং করা হয়।