বাণিজ্য সংবাদ শিল্প-বাণিজ্য

৪৭৪ কোটি টাকার সাত প্রস্তাব ক্রয় কমিটিতে অনুমোদন

নিজস্ব প্রতিবেদক: ৪৭৪ কোটি ১২ লাখ টাকা ব্যয়ের সাতটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। অনলাইন প্ল্যাটফর্ম জুমের মাধ্যমে গতকাল ক্রয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গতকাল ছিল কমিটির ২৭তম সভা।

অনুমোদিত সাতটি প্রস্তাবের মধ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের ৩টি, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ২টি প্রস্তাবের পাশাপাশি জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগ এবং পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের একটি করে প্রস্তাবনা রয়েছে। অনুমোদিত ৭টি প্রস্তাবে মোট অর্থের পরিমাণ ৪৭৪ কোটি ১২ লাখ ৮১ হাজার ৪০৬ টাকা। এর মধ্যে সরকারের নিজস্ব অর্থায়ন ২৮৭ কোটি ৫৯ লাখ ৮৯ হাজার ৭৫২ টাকা এবং জাইকা ও দেশীয় ব্যাংক থেকে ঋণের মাধ্যমে আসবে ১৮৬ কোটি ৫২ লাখ ৯১ হাজার ৬৫৪ টাকা।

অনুমোদিত প্রস্তাবগুলোর মধ্যে প্রথমটি হলোÑজ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি আইনের আওতায় রূপকল্প-৯: ২ডি সাইসমিক প্রকল্পের ৭টি লটে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগের প্রস্তাব। এতে ব্যয় হবে ১৩ কোটি ৭৫ লাখ ৬ হাজার ৫ টাকা।

দ্বিতীয় প্রস্তাব হলো পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীন ‘হাওর এলাকায় বন্যা ব্যবস্থাপনা ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন প্রকল্পে’ নিয়োজিত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান জাপানের নিপ্পন কোয়েই কোম্পানি লিমিটেডকে বিদ্যমান চুক্তির সঙ্গে ভেরিয়েশন বাবদ ১৩ কোটি ২৩ লাখ ১১ হাজার টাকা যুক্ত করে সংশোধিত চুক্তি সম্পাদনের অনুমোদন। তৃতীয় প্রস্তাবের আওতায় বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন (বিসিআইসি) কর্তৃক কাতারের মুনতাজাত থেকে ২৫ হাজার টন বাল্ক প্রিল্ড (অপশনাল) ইউরিয়া সার ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন। এতে ব্যয় হবে ৫৫ কোটি ৫৮ লাখ ৯১ হাজার ৫৬২ টাকা। চতুর্থ প্রস্তাব হলোÑবিসিআইসি কর্তৃক সৌদি বেসিক ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশ (এসএবিআইসি) থেকে ২৫ হাজার টন বাল্ক গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার ক্রয়। এতে ব্যয় হবে ৫৫ কোটি ৫৮ লাখ টাকা।

পঞ্চম প্রস্তাব হলোÑবিসিআইসি কর্তৃক কাফকো থেকে ৩০ হাজার টন ব্যাগড গ্র্যানুলার ইউরিয়া সার ক্রয়। এতে ব্যয় হবে ৬২ কোটি ১১ লাখ ৯৬ হাজার টাকা। ষষ্ঠ প্রস্তাবের আওতায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর কর্তৃক ‘কক্সবাজার জেলার একতাবাজার থেকে বানৌজ শেখ হাসিনা ঘাঁটি পর্যন্ত সড়ক উন্নয়ন’ প্রকল্পের একটি প্যাকেজের পূর্ত কাজ সম্পাদনে একমাত্র দরদাতা প্রতিষ্ঠানকে অনমোদন দেওয়া। এ কাজে ব্যয় হবে ১৩৫ কোটি ৯২ লাখ ২৪ হাজার টাকা। এ অর্থ দিয়ে ১ লাখ ৯১ হাজার ঘনমিটার সড়ক বাঁধে মাটির কাজ, ৪০০ মিটার বাঁক সরলীকরণ, ৬ দশমিক ৫৪ কিলোমিটার পেভমেন্ট শক্তিশালীকরণ ও প্রশস্তকরণ, ৫৭৬ কিলোমিটার পেভমেন্ট শক্তিশালীকরণ, প্রশস্তকরণ ও উঁচুকরণ, ৭০০ মিটার রিজিভ পেভমেন্ট, আরসিসি বক্স কালভার্ট ৪টি, ইন্টারসেকশন ৩টি, আরসিসি সসার ড্রেন ইত্যাদি নির্মাণ করা হবে।

সর্বশেষ প্রস্তাব হলোÑকক্সবাজার জেলার একতাবাজার থেকে বানৌজ শেখ হাসিনা ঘাঁটি পর্যন্ত সড়ক উন্নয়ন, আরেক প্যাকেজে সর্বনি¤œ দরদাতা প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদন। ষষ্ঠ ও সপ্তম প্যাকেজের কাজ পেয়েছে মেসার্স জামিল ইকবাল, ন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার্স এবং হাসান টেকনো বিল্ডার্সের যৌথ উদ্যোগ। সপ্তম প্যাকেজে ব্যয় হবে ১৩৭ কোটি ৯২ লাখ টাকা। এ প্যাকেজের আওতায় যেসব কাজ হবে তার মধ্যে রয়েছেÑ১ লাখ ৯২ হাজার ঘনমিটার সড়ক বাঁধে মাটির কাজ, সাড়ে তিন কিলোমিটার নতুন পেভমেন্ট, ৪ মিটার বাঁক সরলীকরণ, ৫ দশমিক ৪ কিলোমিটার পেভমেন্ট শক্তিশালীকরণ ও প্রশস্তকরণ, ৩ মিটার রিজিভ পেভমেন্ট নির্মাণ এবং আরসিসি ৫টি বক্স কালভার্ট, ২টি আরসিসি ড্রেনেজ সুইস গেট, ১টি ইন্টারসেকশন, আরসিসি সসার ড্রেন, সাইন-সিগন্যাল, গাইড পোস্ট, রোড মার্কিং ইত্যাদি নির্মাণ।

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

সর্বশেষ..