প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

৬৩ হাজার হজযাত্রীর জন্য বিমানের ৩৪৬ ফ্লাইট

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: এবার বাংলাদেশ থেকে হজ পালনে সৌদি আরব যাবেন এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজযাত্রী। তাদের মধ্যে ৬৩ হাজার ৫৯৯ জন যাত্রীকে যাওয়া-আসার সেবা  দেবে বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। যাত্রীদের এ সেবার জন্য ফ্লাইট পরিচালনা হবে ৩৬৪টি। আর ২৪ জুলাই সকাল ৭টা ৫৫ মিনিটে ৪১৯ জন যাত্রী নিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস ঢাকা থেকে জেদ্দার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে।

বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ জানান, ৬৩ হাজার ৫৯৯ জন হজযাত্রীর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাবেন চার হাজার ৯০ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫৯ হাজার ৫০৯ জন।

উদ্বোধনী ফ্লাইটের হজযাত্রীদের বিদায় জানাবেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন ও ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান। একই দিন বেলা ১টা ৫৫ মিনিটে, সন্ধ্যা ৭টা ৫৫ মিনিটে ও রাত ৮টা ৪০ মিনিটে বিমানের আরও তিনটি ফ্লাইটে করে হজযাত্রীদের ঢাকা ছাড়ার কথা রয়েছে। ঢাকা ছাড়াও চট্টগ্রাম ও সিলেট থেকে এ বছর বিমানের হজ ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে বলে জানান শাকিল মেরাজ।

বিমান তাদের নিজেদের বোয়িং ৭৭৭ ও লিজে আনা বোয়িং ৭৭৭-২০০ মডেলসহ ছয়টি উড়োজাহাজে হজযাত্রীদের আনা-নেওয়া করবে। এ বছর বুকিং নিশ্চিত করে শিডিউল ঠিক রাখার জন্য বিমান অর্ধেক ভাড়া অগ্রিম নেবে। এবার ঢাকা-জেদ্দা-ঢাকা রুটে হজযাত্রীদের ইকোনমি ক্লাসে ভাড়া এক হাজার ৪৭৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। এর সঙ্গে যোগ হবে অন্যান্য কর। ঢাকা থেকে জেদ্দা প্রতি ফ্লাইটের উড্ডয়নকাল হবে আনুমানিক সাত ঘণ্টা।

জানা যায়, প্রত্যেক হজযাত্রী বিনা মূল্যে সর্বোচ্চ ৪৬ কেজি মালামাল বিমানে ও বিজনেস ক্লাসের জন্য সর্বোচ্চ ৫৬ কেজি এবং কেবিন ব্যাগেজে সাত কেজি মালামাল সঙ্গে নিতে পারবেন। ফিরতি ফ্লাইটে প্রত্যেক হজযাত্রীর জন্য পাঁচ লিটার জমজমের পানি ঢাকায় নিয়ে আসা হবে। ঢাকায় আসার পর তাদের তা দেওয়া হবে। তারা সঙ্গে করে উড়োজাহাজে করে পানি বহন করতে পারবেন না। যে কোনো ধারালো বস্তু, ধাতবনির্মিত দাঁতখিলান, কান পরিষ্কারের বস্তু, তাবিজ ও গ্যাসজাতীয় বস্তু এবং ১০০ মিলিলিটারের বেশি তরল পদার্থ হ্যান্ড ব্যাগেজে বহন করা যাবে না। কোনো ধরনের খাদ্যসামগ্রী সঙ্গে নেওয়া যাবে না।

দুই মাসে হজযাত্রী আনা-নেওয়ার জন্য বিমানের ৩৪৬টি ফ্লাইটের মধ্যে ২৮৩টি বিশেষ ও ৬৩টি নিয়মিত ফ্লাইট থাকবে। ২৪ জুলাই থেকে ২৬ আগস্ট পর্যন্ত হজ-পূর্ব ১৭৭টি ফ্লাইট রয়েছে। এছাড়া হজ-পরবর্তী ১৬৯টি ফ্লাইট চলবে ৬ সেপ্টেম্বর থেকে ৫ অক্টোবর পর্যন্ত।