এসএমই

বিজনেস আইডিয়া

নিজের পায়ে দাঁড়াতে হলে আপনাকে উদ্যোগী হতে হবে। আর উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য ঠিক করতে হবে, কী দিয়ে শুরু করবেন। এজন্য দরকার অল্প পুঁজিতে শুরু করা যায়Ñএমন ব্যবসা। এ ধরনের উদ্যোক্তার পাশে দাঁড়াতে শেয়ার বিজের সাপ্তাহিক আয়োজন

গজ কাপড়ের ব্যবসা

সচ্ছলভাবে বেঁচে থাকার তাগিদে মানুষ কতভাবেই না জীবিকা নির্বাহ করছে। এর মধ্যে ব্যবসা অন্যতম। ব্যবসায় যেমন ঝুঁকি রয়েছে, তেমনি সফলতাও রয়েছে। সবাই চায়, ব্যবসায় ঝুঁকি এড়িয়ে লাভবান হতে। ব্যবসা করতে চাইলে শুরুতে অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করা যেতে পারে। অনেকের মতে, অল্প পুঁজি বিনিয়োগ একটি দারুণ আইডিয়া। এমনই একটি ব্যবসার কথা বলছি আজ। এটি হচ্ছে গজ কাপড়ের ব্যবসা। তুলনামূলক ঝুঁকি ছাড়াই সামান্য বিনিয়োগে এ ব্যবসা করা সম্ভব। তরুণ- তরুণী উভয়েই এ ব্যবসা করতে পারেন।

কাপড়ের চাহিদা রয়েছে সব শ্রেণির মানুষের। নানা রঙ ও নজরকাড়া নকশার কারণে কাপড়ের প্রতি উৎসাহ বাড়ছে। এছাড়া দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও গজ কাপড় রফতানি করছেন অনেকে। তাই এটি হতে পারে সৃজনশীল ও লাভজনক একটি ব্যবসা।

কেন শুরু করবেন

অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের কাপড় ও পোশাকশিল্প এগিয়ে রয়েছে। উন্নত দেশগুলোয় দেশীয় কাপড়ের কদর বাড়ছে। ব্যবহারও দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। গজ কাপড় পাইকারি হিসেবে কিনে দেশে ব্যবসার পাশাপাশি রফতানি করে ভালো অর্থ উপার্জন করা যায়। তাছাড়া এ ব্যবসায় তেমন লোকসান নেই। তাই কাপড়ের ব্যবসায় ঝুঁকছেন অনেকে।

শুরু করবেন যেভাবে

ব্যবসার পরিকল্পনা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। পরিকল্পনা ছাড়াও শুরু করতে পারেন। কিন্তু তাতে লোকসান বা ব্যবসা এলোমেলো হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যাবে। তাই ঝুঁকি এড়াতে পরিকল্পনা অনুযায়ী শুরু করুন। এতে কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন। কি পরিমাণ মূলধন লাগবে, প্রতিষ্ঠানের কি নাম রাখবেন, ব্যবসা ঘরোয়া হবে কি না প্রভৃতি বিষয়ে বিশদ পরিকল্পনা করুন। এরপর জায়গা নির্ধারণ করতে হবে। কোথা থেকে গজ কাপড় পাইকারি দরে কিনলে আপনার ভালো হবে প্রভৃতি জানার চেষ্টা করুন।

দেশের বিভিন্ন স্থান, বিশেষ করে রাজধানীর ইসলামপুর কিংবা নানা গার্মেন্ট থেকে কাপড় কিনে প্রতিষ্ঠান বা দোকানে সরবরাহ করতে পারেন।

যোগ্যতা

এ ব্যবসার জন্য বিশেষ কোনো যোগ্যতার প্রয়োজন নেই। সততা ও নিষ্ঠাকে পুঁজি করে এ ব্যবসায় লাভবান ও সফল হওয়া যায়।

আয়-ব্যয়

ব্যবসার শুরুতে অল্প পুঁজি ব্যয় করতে হয়। ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে শুরু করতে পারেন। এরপর লাভের টাকা দিয়ে ব্যবসা বাড়াতে পারেন। এ ব্যবসায় প্রতি মাসে ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা উপার্জন করা সম্ভব। এরপর আপনার পণ্য মানসম্পন্ন হলে ও অভিজ্ঞতার ঝুলি ভারী হলে আপনার আয় দ্বিগুণ হবে নিশ্চিত।

প্রয়োজনীয় তথ্য

#  কাপড় ও বাজার সম্পর্কে খোঁজ-খবর রাখতে হবে

# পর্যাপ্ত সময় দিতে হবে

#  এর ভালো-মন্দ দিক নিয়ে সৃজনশীল চিন্তা করতে হবে

#  প্রতিদিনের আয়-ব্যয়ের হিসাব রাখতে হবে

#  বিক্রি বাড়াতে শুরুর দিকে কাপড়ের দাম সীমিত রাখার চেষ্টা করতে হবে

#  ব্যবসা ছোট হলেও প্রচার করতে হবে। প্রচার বেড়ে গেলে ধীরে ধীরে ব্যবসার খাতও বড় হবে

#  ব্যবসায় ক্ষতি হলে হতাশ বা ভেঙে পড়া যাবে না। সতর্ক ও সচেতনতার সঙ্গে ব্যবসা পরিচালনা করতে হবে।

এসএমই ডেস্ক

সর্বশেষ..